default-image

ব্রিকস জোটের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকে (এনডিবি) বাংলাদেশ শিগগিরই সদস্য হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, এনডিবির সদস্য হওয়ার জন্য যেসব শর্ত দেওয়া হয়েছে, তার সব কটিই বাংলাদেশের রয়েছে। তাই আশা করছি, শিগগিরই বাংলাদেশ এনডিবির সদস্য হতে পারবে। গতকাল মঙ্গলবার এনডিবির সভাপতি মার্কোস প্রাদো ট্রয়জোর সঙ্গে অনলাইনে এক সভায় অংশ নিয়ে অর্থমন্ত্রী এ ঘোষণা দেন।

অনলাইন সভায় অর্থ বিভাগ, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ এবং এনডিবির কর্মকর্তারা অংশগ্রহণ করেন। অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এনডিবিতে বাংলাদেশের ভূমিকা, নতুন ব্যাংকের ঋণের শর্ত কী হবে, বিনিয়োগের খাত কী—এসব বিষয় নিয়ে সভায় আলোচনা হয়। এনডিবির সদস্যভুক্তির মূল কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে একটি কারিগরি কমিটি গঠন করা হবে বলে বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়।

বিজ্ঞাপন

অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে, এনডিবির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয় ২০১৫ সালের ২১ জুলাই। ব্যাংকটির মোট মূলধন ১০ হাজার কোটি ডলার। আর প্রাথমিক মূলধন ৫ হাজার কোটি ডলার। ২০১৬ সাল থেকে এনডিবি অবকাঠামো এবং টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে ব্রিকসভুক্ত দেশে ১৫০ কোটি ডলার ঋণ দিয়েছে। ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চীন ও দক্ষিণ আফ্রিকাকে নিয়েই ব্রিকস গঠিত। দেশগুলোর আদ্যক্ষর নিয়ে ব্রিকসের নামকরণ।

করোনার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার লক্ষ্যে সদস্যরাষ্ট্রগুলোর কার্যক্রমে ব্যাংকটি অংশগ্রহণ করেছে। ২০২০ সালে ব্যাংকটি একসঙ্গে ৭২টি প্রকল্পে প্রায় আড়াই হাজার কোটি মার্কিন ডলার ঋণ অনুমোদন দিয়েছে। এনডিবির সদস্যপদ অর্জনের মাধ্যমে বাংলাদেশের জন্য ব্যাংকের পণ্য এবং পরিষেবা ক্রয় কার্যক্রমে অংশগ্রহণ, সহনীয় সুদ হারে ঋণ নেওয়ার সুযোগ তৈরি; ব্যাংকের কৌশল, নীতি, পদ্ধতি ও কার্যক্রমে অংশগ্রহণের সুযোগ এবং সদস্যদেশের নাগরিকদের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হবে বলে মনে করে অর্থ মন্ত্রণালয়।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন