বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) মীরজাদি সেব্রিনা বলেন, নীতিকৌশল প্রণয়নে তথ্য থাকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। দেশে তথ্য সংগ্রহের হার বাড়ছে। সরকার দেশব্যাপী এবং অঞ্চলভিত্তিক যখন বিধিনিষেধ দিয়েছে, এ তথ্যের আলোকেই দিয়েছে। করোনার মধ্য দিয়ে এ ধারা তৈরি হয়েছে। এটি আরও উন্নতি করতে হবে। স্বাস্থ্যের পাশাপাশি যদি অর্থনৈতিক সংক্রান্ত তথ্য পাওয়া যেত, তাহলে সিদ্ধান্ত নেওয়া আরও সহজ হতো।

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক রশীদ ই মাহবুব বলেন, করোনার কারণে মানুষের খাদ্যাভ্যাস, ব্যক্তিগত জীবনাচরণ ও সামাজিক জীবনে নানা পরিবর্তন এসেছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্ত থাকা প্রয়োজন। তথ্য না থাকলে নীতিপ্রণেতাদের জন্য ভবিষ্যৎ কার্যকর পরিকল্পনা গ্রহণ করা কঠিন।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন