বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কিউকমের চিঠিতে বলা হয়, বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদিত পেমেন্ট গেটওয়ে প্রতিষ্ঠান ফোস্টার পেমেন্টসের কাছে কিউকমের গ্রাহকদের পরিশোধ করা ৪২০ কোটি টাকা আটকে রয়েছে। গ্রাহকদের পণ্য বুঝিয়ে দেওয়ার পরও তারা গেটওয়েটির কাছ থেকে টাকা পাচ্ছে না।

এ বিষয়ে জানার জন্য গতকাল কিউকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. রিপন মিয়ার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে তা বন্ধ পাওয়া যায়। তবে গত শুক্রবার তিনি প্রথম আলোকে বলেছিলেন, ২৩ সেপ্টেম্বর ৫ হাজার ৬০০ জন গ্রাহকের প্রায় ১০০ কোটি টাকা ফেরত দিতে ফোস্টারের কাছে অনুরোধ করলেও প্রতিষ্ঠানটি সাড়া দিচ্ছে না। তারা টাকা ছাড় করলে গ্রাহকেরা তাঁদের পাওনা বুঝে পাবেন।

এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে যাত্রা শুরু করে কিউকমডটকম। ইভ্যালির মতো তারাও বিশাল ছাড়ে বাজারমূল্যের চেয়ে কম দামে পণ্য বিক্রির বিজ্ঞাপন দেয়। প্রতিষ্ঠানটির দাবি, তাদের নিবন্ধিত গ্রাহকের সংখ্যা ৬ লাখের বেশি। গ্রাহকদের সময়মতো পণ্য সরবরাহ না করার বিস্তর অভিযোগ রয়েছে কিউকমের বিরুদ্ধেও। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়েও প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে বেশ কিছু অভিযোগ জমা পড়েছে।

ফোস্টার পেমেন্টস ওয়েবসাইটে গিয়ে দেখা যায়, এটি এসএসডি টেক নামক একটি কোম্পানির পেমেন্ট সার্ভিস উইং। বাংলাদেশের পাশাপাশি মালয়েশিয়া, মিয়ানমার ও সিঙ্গাপুরেও তারা রাত-দিন ২৪ ঘণ্টা সেবা দেয়। রাজধানীর গুলশানে উদয় টাওয়ারে তাদের কার্যালয়। ওয়েবসাইটে দেওয়া ফোনে গতকাল প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে যোগাযোগ করলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ফখরুল ইসলামকে ফোন করলেও তিনি ফোন ধরেননি। খুদে বার্তা দিলেও কোনো জবাব দেননি।

কিউকমের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ

মিরপুরের বাসিন্দা মনিরুল ইসলাম গত ১৬ জুন ৭০ শতাংশ ডিসকাউন্টে স্যামসাং ব্র্যান্ডের ৫৫ ইঞ্চির একটি টেলিভিশন কিউকমডটকম থেকে কেনার জন্য টাকা দেন। তাঁর অভিযোগ, ২১ দিনের মধ্যে পণ্য পাওয়ার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত তিনি পণ্য বা টাকা কোনোটিই পাননি। এ ব্যাপারে কিউকমের কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির গত শুক্রবার প্রথম আলোর কাছে দাবি করেন, কয়েকটি পণ্যের ক্ষেত্রে বিক্রেতারা (ভেন্ডর) পণ্য দেননি। ম্যাঙ্গো টিভি ও এইচ পাওয়ার বাইক নামের পণ্য সরবরাহকারী দুটি প্রতিষ্ঠানের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তাদের কাছে টাকা দেওয়া হলেও পণ্য পায়নি কিউকম।

গ্রিন ইলেকট্রনিকস নামের প্রতিষ্ঠান থেকে ম্যাঙ্গো টিভির ক্রয়াদেশ দেয় কিউকম। কিন্তু এই প্রতিষ্ঠানের ডিলার মো. মোস্তফা প্রথম আলোকে বলেন, কিউকম থেকে ম্যাঙ্গো টিভির ক্রয়াদেশ তিনি পেয়েছেন। কিন্তু টাকা না পাওয়ায় তাঁরা পণ্য দিচ্ছেন না।

এদিকে নিউ গ্রামীণ মোটরস নামের পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের এক কর্মকর্তা জানান, ৭২টি মোটরসাইকেল সরবরাহ দিতে গ্রাহকের একটি তালিকা পাঠিয়েছে কিউকম। ৩৮টি সরবরাহ দেওয়া হয়। কিন্তু কিউকমের ওয়্যারহাউসে না দিয়ে সরাসরি গ্রাহককে পণ্য দেওয়ায় কিউকম তাঁদের ওপর নাখোশ হয়। তিনি দাবি করেন, ৫৭ লাখ ৮০ হাজার টাকার ক্রয়াদেশ দিয়ে ৫২ লাখ টাকা পরিশোধ করেছে কিউকম।

রিপন মিয়া কিউকমের এমডি হলেও যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মসমূহের পরিদপ্তর (আরজেএসসি) থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী এর চেয়ারম্যান মো. আইয়ুব আলী। আরজেএসসিতে দেওয়া আইয়ুব আলীর মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে ওই প্রান্ত থেকে একজন রিসিভ করে জানান, ‘আমি আইয়ুব আলীর বাবা মো. জসিম উদ্দিন।’

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন