বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব, অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্ম সচিবকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। মোশাররফ হোসেনের পদে থাকার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে গত ২৬ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন বিনিয়োগকারী আবু সালেহ মোহাম্মদ আমিন মেহেদী। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মোস্তাফিজুর রহমান ও কারিশমা জাহান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

কারিশমা জাহান বলেন, আইডিআরএর চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ২০১৭ সালের ৯ মে যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মসমূহের নিবন্ধক— আরজেএসসিতে লাভস অ্যান্ড লাইভ অর্গানিকস লিমিটেড নামে একটি কোম্পানির নিবন্ধন করেন। এতে তিনি নিজেকে কোম্পানিটির পরিচালক ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এবং স্ত্রী জান্নাতুল মাওয়াকে পরিচালক হিসেবে দেখান। তিনি ২০১৮ সালের ২৮ জানুয়ারি গুলশান ভ্যালি অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড নামে আরেকটি কোম্পানির নিবন্ধন করেন। এটারও পরিচালক ও এমডি তিনি এবং তাঁর স্ত্রী জান্নাতুল মাওয়া পরিচালক।

কারিশমা জাহান বলেন, আইন অনুযায়ী কোনো ব্যক্তি কোনো কোম্পানি বা সংস্থার পরিচালক বা অন্য কোনো পদে নিযুক্ত থাকলে, তিনি কর্তৃপক্ষের সদস্য বা চেয়ারম্যান হওয়ার যোগ্য হবেন না। অথচ দুটি কোম্পানির পরিচালক ও এমডি থাকা অবস্থায় তথ্য গোপন করে আইডিআরএ আইন ২০২০-এর ৭(৩)(খ) ধারা লঙ্ঘন করে মোশাররফ হোসেন চেয়ারম্যান পদে বহাল আছেন।

মোশাররফ হোসেন ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসে আইডিআরএর সদস্য হিসেবে নিয়োগ পান। পরে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পান তিনি।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন