default-image

উত্তরা মোটরস চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে জাপানের সুজুকি ব্র্যান্ডের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে গাড়ি উৎপাদন করবে। এ লক্ষ্যে দেশীয় প্রতিষ্ঠানটি সেখানে ৫০ একর জমি ইজারা নিয়েছে। এ ব্যাপারে গতকাল বুধবার বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) সঙ্গে উত্তরা মোটরস একটি চুক্তি সই করেছে।

উত্তরা গ্রুপ অব কোম্পানিজের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মতিউর রহমান এবং বেজার মহাব্যবস্থাপক মো. মনিরুজ্জামান চুক্তিতে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সই করেন। রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বেজার কার্যালয়ে আয়োজিত চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে জানানো হয়, উত্তরা মোটরসের গাড়ি কারখানা নির্মাণে প্রাথমিকভাবে সাড়ে ৩ কোটি ডলার খরচ হবে, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ২৮৫ কোটি টাকা। সুজুকি ব্র্যান্ডের গাড়ি উৎপাদনের লক্ষ্যে এই কারখানা করা হচ্ছে। এতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় ৮০০ মানুষের কর্মসংস্থান হবে। উত্তরা মোটরস দেশে ১৯৭২ সাল থেকে ভারত, জাপান ও থাইল্যান্ডের বিভিন্ন ব্র্যান্ডের গাড়ির সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করে আসছে।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের দেশে গাড়ির ব্যাপক চাহিদা আছে। গাড়ির উৎপাদন বাড়লে পুরোনো গাড়ি আমদানি বন্ধ হয়ে যাবে।’ তিনি বলেন, গাড়ি নির্মাতাদের জন্য বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে আরও জমি রাখা হয়েছে। দেশে ব্যক্তিগত গাড়ি, বাণিজ্যিক যান ও মোটরসাইকেল শিল্প স্থাপনের একটা সুযোগ তৈরি হয়েছে। সুযোগটি কাজে লাগাতে চায় বেজা। তিনি আরও বলেন, দেশে তৈরি গাড়ি, যন্ত্র ও যন্ত্রাংশ শুধু স্থানীয় বাজারেই নয়, আশপাশের দেশগুলোতেও রপ্তানি করা যেতে পারে।

বিজ্ঞাপন

উত্তরা গ্রুপ অব কোম্পানিজের চেয়ারম্যান ও এমডি মতিউর রহমান বলেন, ব্যবসা সম্প্রসারণের জন্য বঙ্গবন্ধু শিল্পনগর আদর্শ জায়গা। যেসব সুযোগ-সুবিধা চাওয়া হয়েছে, বেজা থেকে সেগুলো প্রদানের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। তিনি আশা প্রকাশ করেন, খুব দ্রুতই কারখানা স্থাপনের কার্যক্রম শুরু করা যাবে।

বেজার কর্মকর্তারা বলছেন, সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ও দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগরে দেশের প্রথম অটোমোবাইল হাব তৈরি হতে যাচ্ছে। সেখানে দেশের প্রথম বৈদ্যুতিক গাড়ি তৈরির কারখানা স্থাপন করছে বাংলাদেশ অটো ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড। ইতিমধ্যে ওই কারখানার কাজ অনেকটা এগিয়েছে। এ বছরের শেষ নাগাদ বাংলাদেশি ব্র্যান্ড নামে বৈদ্যুতিক গাড়ি বাজারে আনতে চায় তারা। প্রতিষ্ঠানটি বছরে ৩৫ হাজার ব্যক্তিগত গাড়ি বা প্রাইভেট কার, ৫০ হাজার তিন চাকার যান ও ১ লাখ ইলেকট্রিক মোটরসাইকেল উৎপাদনের লক্ষ্য ঠিক করেছে।

কর্মকর্তারা আরও জানান, বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে জিপিএইচ ইস্পাতের স্টার অ্যালাইড ভেঞ্চার ৫০ একর জমি নিয়েছে। আরও কিছু প্রতিষ্ঠানের আগ্রহ রয়েছে। আগ্রহী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে রানার অটোমোবাইল, ইফাদ অটোস ও অটো স্পোর্টস লিমিটেড। এসব প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগ প্রস্তাব প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

অটোমোবাইল খাতে বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে প্রস্তাবিত সর্বমোট বিনিয়োগের পরিমাণ দাঁড়াবে ৩৪ কোটি ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ২ হাজার ৮৯০ কোটি টাকা। সব মিলিয়ে সেখানে অটোমোবাইল খাতে প্রায় আট হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে।
বেজা জানিয়েছে, বিনিয়োগ পরিকল্পনা নিয়ে জাপানের গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মিতসুবিশির ভাইস প্রেসিডেন্ট গত বছরের শুরুতে বঙ্গবন্ধু শিল্পনগর পরিদর্শন করেন। জাপানের আরেক গাড়ি নির্মাতা কাওয়াসাকিও বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে বিনিয়োগের আগ্রহ দেখিয়েছে।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন