জানতে চাইলে তৈরি পোশাক কারখানার মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর প্রথম সহসভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, রপ্তানির বড় অংশের গন্তব্য ইউরোপ–আমেরিকা। এসব দেশে পণ্য রপ্তানিতে যাতে কোনো সমস্যা না হয়, সে জন্য বন্দরের নিরাপত্তাব্যবস্থাকে সব সময় গুরুত্ব দেওয়া উচিত। তাদের পর্যবেক্ষণগুলো গুরুত্বের সঙ্গে বাস্তবায়ন করা দরকার।

কেন এই পরিদর্শন

যুক্তরাষ্ট্র যেসব দেশ থেকে পণ্য আমদানি করে, সেসব দেশে ‘আন্তর্জাতিক বন্দর নিরাপত্তা কর্মসূচি’র আওতায় বন্দর ও বন্দরসহায়ক স্থাপনার নিরাপত্তাব্যবস্থা খতিয়ে দেখে। এ ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক নৌ সংস্থার নিরাপত্তাব্যবস্থা–সংক্রান্ত আইএসপিএস কোড (জাহাজ ও বন্দর স্থাপনার নিরাপত্তাঝুঁকি ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম) বাস্তবায়নকে প্রাধান্য দেয় তারা। সমুদ্রে নাবিকদের জীবনের নিরাপত্তাবিষয়ক কনভেশন সেফটি অব লাইফ অ্যাট সি বা সোলাসের আওতায় আইএসপিএস কোড রয়েছে। ২০০৪ সালের ১ জুলাই থেকে এই কোড বাস্তবায়ন শুরু হয় বাংলাদেশেও।

নৌপরিবহন অধিদপ্তর ও বন্দর সূত্রে জানা গেছে, আজ মঙ্গলবার দুই সদস্যের প্রতিনিধিদল বাংলাদেশ সফরে এসেছে। আজই তারা বন্দর পরিদর্শন করেছে। দলটির আগামীকাল বুধবার বন্দরসহায়ক স্থাপনা পরিদর্শনের কথা রয়েছে। পরিদর্শন শেষে প্রতিনিধিদল তাদের পর্যবেক্ষণ তুলে ধরবে।

এর আগে ২০১৭ সালে বন্দর পরিদর্শন করে মার্কিন প্রতিনিধিদলটি ১৬ দফা পর্যবেক্ষণ দিয়েছিল। সেই ১৬ দফা পর্যবেক্ষণের বাস্তবায়ন অগ্রগতি দেখতে ২০১৯ সালে পরিদর্শনে আসে তারা। তখন বন্দরের অগ্রগতিতে সন্তোষ প্রকাশ করে প্রতিনিধিদলটি। এরপরও সাইবার নিরাপত্তায় গুরুত্ব দেওয়ার কথা জানায়। আবার পণ্য খালাস নিতে আসা গাড়ির চালক ও সহকারীদের দীর্ঘ সময় বন্দরের সংরক্ষিত এলাকায় অবস্থানকে নিরাপত্তাঝুঁকি হিসেবে চিহ্নিত করে তারা। করোনার কারণে দুই বছর বন্দর পরিদর্শন করেনি প্রতিনিধিদলটি। তাই এবারের পরিদর্শনে নিরাপত্তাসংক্রান্ত সব কটি বিষয় যাচাই করার কথা রয়েছে।

কতটুকু অগ্রগতি

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, মানুষ ও যানবাহন আসা-যাওয়ার ফটকে উন্নত মানের নিরাপত্তাব্যবস্থা চালু, রপ্তানি পণ্যের স্ক্যানিং কার্যক্রম, বন্দর এলাকায় সিসিটিভির আওতা বাড়ানো, সীমানাদেয়াল তদারকিতে ক্যামেরা বসানো, জেটি এলাকা থেকে পণ্য খালাস সরিয়ে নেওয়া, সন্দেহভাজন গাড়ি দৈবচয়ন ভিত্তিতে যাচাইয়ের মতো অনেকগুলো বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা তুলে ধরেছিল যুক্তরাষ্ট্রের কোস্টগার্ড। এর মধ্যে অনেকগুলো বাস্তবায়ন করা হয়েছে। রপ্তানি পণ্য স্ক্যানিংয়ের কার্যক্রম বাস্তবায়নাধীন রয়েছে।

জানতে চাইলে চট্টগ্রাম বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল এম শাহজাহান প্রথম আলোকে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিদল যেসব পর্যবেক্ষণ দিয়েছিল, তার বেশির ভাগই বাস্তবায়ন করা হয়েছে। বাস্তবায়নের অপেক্ষায় থাকা স্ক্যানার যন্ত্র সংগ্রহের দরপত্রও আহ্বান করা হয়েছে। শিগগিরই তা সংগ্রহ করে রাজস্ব বোর্ডের কাছে হস্তান্তর করা হবে। রপ্তানি পণ্য স্ক্যানিংয়ের আওতা বাড়বে।

অন্যদিকে বেসরকারি কনটেইনার ডিপো সমিতির সভাপতি নুরূল কাইয়ূম খান প্রথম আলোকে বলেন, বেসরকারি ডিপোগুলোতে আইএসপিএস কোড বাস্তবায়ন করা হয়েছে। এর আগেও তারা যুক্তরাষ্ট্রের কোস্টকার্ডের প্রতিনিধিদল পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেছিল। পোশাকের বিদেশি ক্রেতারাও নিয়মিত নিরীক্ষা করেন ডিপোগুলো। তাতে নিরাপত্তাব্যবস্থা নিয়ে সমস্যা হওয়ার কথা নয়।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন