বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মূল প্রবন্ধে জিওভান্নি ভেলেনসিসি বলেছেন, বাংলাদেশের উচিত হবে অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধিতে জোর দেওয়া। একদিকে বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থান বাড়াতে হবে, অন্যদিকে মানবসম্পদের উন্নয়ন ঘটাতে হবে। একই সঙ্গে সামাজিক সুরক্ষায় বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। তিনি বলেন, আরেকটি জায়গায় কাঠামোগত রূপান্তর আনা জরুরি। সেটি হলো, একক খাতের ওপর নির্ভরশীল না থেকে পণ্য বহুমুখী করা।

প্রতিবেদনে আঙ্কটাড বলেছে, এলডিসি থেকে উত্তরণের আগে প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে হবে বাংলাদেশকে। উন্নত বিশ্ব থেকে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে প্রযুক্তির হস্তান্তর জরুরি। প্রতিবেদন বলছে, বাংলাদেশের রাজস্ব আদায়ের হার ভালো নয়। রাজস্ব আদায় বাড়াতে হলে প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বাড়ানোর বিকল্প নেই।

রফ ট্রেগার প্রবন্ধে দেখিয়েছেন, জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা বা এসডিজির মেয়াদ আছে আর ১০ বছর। এসডিজি বাস্তবায়নে স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও সামাজিক সুরক্ষায় বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। করোনার কারণে এসব খাতের অবস্থা নাজুক।

মিয়া সেপ্পো বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশ যখন স্বাধীনতার ৫০ বছর উদ্‌যাপন করছে, ঠিক তখনই এলডিসি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। সেই একই সময়ে বাংলাদেশকে দ্বিতীয়বারের মতো এলডিসি থেকে উত্তরণের সুপারিশ করেছে জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট (সিডিপি)। করোনার সময় বাদ দিলে গত এক দশকে বাংলাদেশ দারিদ্র্যবিমোচন ও মানবসম্পদ সূচকে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে। কিন্তু করোনার কারণে অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশও চ্যালেঞ্জের মধ্যে পড়েছে।

মিয়া সেপ্পো আরও বলেন, কর্মক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ কম, সেখানে উন্নতি করতে হবে সরকারকে। এলডিসি থেকে উত্তরণের আগে জোর দিতে হবে নতুন কর্মসংস্থানে। একই সঙ্গে বেসরকারি খাতের বিনিয়োগ পরিবেশের উন্নতি ঘটাতে হবে।

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এলডিসি থেকে উত্তরণের পর ওষুধশিল্প বড় ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে পারে। ২০২৬ সালের পর আর মেধাস্বত্ব সুবিধা পাবে না বাংলাদেশ। ২০৩৩ সাল পর্যন্ত এ সুবিধা পেতে হলে নতুন করে চুক্তি করতে হবে। বিদ্যমান নিয়ম অনুযায়ী, ২০২৬ সালে এই সুবিধার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে।

বাণিজ্যসচিব তপন কান্তি ঘোষ বলেন, করোনা মহামারি, জলবায়ু পরিবর্তনসহ নানা ধরনের চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে পার হচ্ছে বাংলাদেশ। এর মধ্যেই ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্ড বা জনসংখ্যার বোনাসকালকে কাজে লাগাতে সরকার নানামুখী পদক্ষেপ নিচ্ছে।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন