অর্থমন্ত্রীর কাছে প্রশ্ন ছিল আগামী বাজেটে ভর্তুকির চাপ কমাতে গ্যাস, বিদ্যুৎ ও সারের দাম বাড়ানো হবে কি না। জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ভর্তুকি নয় মূল্যস্ফীতি ব্যবস্থাপনাই মুখ্য। কিন্তু যুদ্ধ (রাশিয়া-ইউক্রেন) থামার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। যুদ্ধই এ মুহূর্তে বড় ঝুঁকির বিষয়।’

আগামী অর্থবছরে মূল্যস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা ৫ দশমিক ৫ শতাংশ ধরা হচ্ছে বলে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের সঙ্গে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) হারকেও মেলান অর্থমন্ত্রী। বলেন, যুদ্ধ পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে গেলে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা সংশোধন করা হবে। প্রয়োজনে আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছর এবং চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের লক্ষ্যমাত্রাও সংশোধন করা হবে।

চলতি অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির হারের লক্ষ্যমাত্রা ৭ দশমিক ২ শতাংশ এবং আগামী অর্থবছরের জন্য তা ৭ দশমিক ৫ শতাংশ ধরার পরিকল্পনা আছে সরকারের।
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এ হার আগেই নির্ধারণ করা হয়েছিল। এখন পর্যন্ত তা ঠিক রাখা হয়েছে। কিন্তু যুদ্ধ পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে গেলে এ লক্ষ্যমাত্রা সংশোধন করতে হবে।’

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন