বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রামে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়ানো ও অর্থনীতির প্রাণকেন্দ্র হিসেবে চট্টগ্রামকে গড়ে তুলতে সংবাদ সম্মেলনে নানা সমস্যা সমাধানের তাগিদ দেন বিজিএমইএ নেতারা। এ সময় বিজিএমইএর সাবেক প্রথম সহসভাপতি মোহাম্মদ আবদুস সালাম, নাসির উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী, মঈনুদ্দিন আহমেদ, সাহাবুদ্দিন আহমেদ, এস এম আবু তৈয়ব প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিজিএমইএর সহসভাপতি রাকিবুল আলম চৌধুরী বলেন, চট্টগ্রামে কারখানা স্থাপন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য স্বল্প সুদে ঋণ প্রদানে ব্যাংকগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে।
বিজিএমইএর সাবেক প্রথম সহসভাপতি এম এ সালাম বলেন, মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্রবন্দর, বে-টার্মিনাল হলে তৈরি পোশাকশিল্পে বিপ্লব ঘটবে।

মতবিনিময় সভায় লিখিত বক্তব্যে জানানো হয়, বিজিএমইএর সদস্যভুক্ত ৪ হাজার ৭০০ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২ হাজার ৭৩৪টি বন্ধ হয়ে গেছে। বাকি ১ হাজার ৯৬৬ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১ হাজার ৬০০টি আমদানি-রপ্তানি কাজে নিয়োজিত আছে। চট্টগ্রামে ৬৭৯টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বন্ধ রয়েছে ৩৯৮টি। আমদানি-রপ্তানি কাজে নিয়োজিত আছে ১৯০টি কারখানা। করোনায় গত মার্চ থেকে আগস্টের মধ্যে ঢাকায় ২৮১টি ও চট্টগ্রামে ৩০টি পোশাকশিল্প প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে বলে লিখিত বক্তব্যে জানানো হয়।
এতে বলা হয়, এক দশক আগেও তৈরি পোশাক রপ্তানিতে চট্টগ্রামের হিস্যা ছিল ৪৯ শতাংশ। তবে গ্যাস, বিদ্যুৎ ও অবকাঠামোগত বিভিন্ন সমস্যার কারণে তা ১৪ শতাংশে নেমে এসেছে।

শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন