কাস্টমসের একটি কমিটি সম্প্রতি সরেজমিন যাচাই–বাছাই করে দেখতে পায়, আমদানি করা প্রায় ৬৬ হাজার বর্গফুট কাঠের বড় অংশই জ্বালানি হিসেবে ব্যবহারেরও অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। শুধু ২৬ হাজার বর্গফুট কাঠ জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। এই কাঠের সংরক্ষিত মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৩ লাখ ১৮ হাজার টাকা। একাধিকবার নিলামে ওঠায় যেকোনো দরে এই কাঠ সর্বোচ্চ দরদাতার অনুকূলে বিক্রি করতে পারবে কাস্টমস।

কাস্টমসের উপকমিশনার আলী রেজা হায়দার প্রথম আলোকে বলেন, উদ্ভিদ সংঘ নিরোধ কর্তৃপক্ষ জ্বালানি কাঠ হিসেবে নিলাম করার ছাড়পত্র দিয়েছে। ফলে এই কাঠ নিলামে যিনি পাবেন, তিনি এক-দুদিনের মধ্যেই খালাস নিতে পারবেন।

কাস্টমস জানায়, ঢাকার গোমতী টিম্বার কমপ্লেক্স ২০১২ সালে মিয়ানমার থেকে এই কাঠ আমদানি করে। আমদানিকারক খালাস না নেওয়ায় পরে কাস্টমসের পক্ষ থেকে তা নিলামে তোলা হয়। এরপরই আমদানিকারক কাস্টমসের নিলামের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতের দ্বারস্থ হয়। কিন্তু আদালতের রায় অনুযায়ী আমদানিকারক নির্ধারিত সময়ে এসব কাঠ খালাস নেননি। এরপর বারবার নিলামে তুলেও বিক্রি করতে পারেনি কাস্টমস। কাঠের মান খারাপ হওয়ায় উদ্ভিদ সংঘ নিরোধ কর্তৃপক্ষও ছাড়পত্র দেয়নি। শেষ পর্যন্ত জ্বালানি কাঠ হিসেবে বিক্রির ছাড়পত্র দেওয়ায় এখন আবার নিলামে তোলা হচ্ছে।

শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন