বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পর্যটন মৌসুমে জাহাজটির আবার সমুদ্রযাত্রা উপলক্ষে বৃহস্পতিবার পতেঙ্গার ১৫ নম্বর ঘাটে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুর রশিদ বলেন, গত ডিসেম্বরে কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স লিমিটেডের তত্ত্বাবধানে চট্টগ্রাম-সেন্ট মার্টিন রুটে বে ওয়ান চালু হয়। তবে করোনা মহামারির কারণে গত মার্চে চলাচল বন্ধ রাখা হয়। এখন নতুন উদ্যমে চালু হলেও জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণে ভাড়া ১৭ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে। জাহাজটি পরিচালনায় এক দিনের জ্বালানি খরচ ২১ লাখ টাকা।

আবদুর রশিদ বলেন, ‘সরকার সহায়তা করলে বে ওয়ানের ১০ গুণ বড় জাহাজ এনে হাজিদের আনা–নেওয়া করতে পারব। আগে এক মাস লাগত হজে যেতে। এখন আট দিনে জেদ্দা পৌঁছাতে সম্ভব। জাহাজে হাজিদের কষ্ট হবে না। বিমানের চেয়ে জাহাজে পরিসর বেশি।’

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, জাহাজটি চলাচল বন্ধ থাকার সময় আরও আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংযোজন করা হয়েছে। জাহাজটিতে ১ হাজার ৮০০ আসনের ব্যবস্থা রয়েছে। ঘণ্টায় ১৮ থেকে ২০ নটিক্যাল মাইল গতিতে চলতে সক্ষম জাহাজটি।

ভাড়ার তালিকা

পর্যটকদের যে কেউ চাইলে আসা-যাওয়ার বা এক পথের টিকিট বুকিং দিতে পারবেন। ভাড়ার নতুন তালিকা অনুযায়ী, ইকোনমি ক্লাস চেয়ারে একবার যাওয়া বা আসার ভাড়া ২ হাজার ২০০ টাকা। আসা-যাওয়া মিলে ভাড়া চার হাজার টাকা। বিজনেস ক্লাসে এক পথের ভাড়া ৩ হাজার টাকা, আসা-যাওয়া মিলে ভাড়া ৫ হাজার ৪০০ টাকা। বাংকার বেডের এক পথের ভাড়া ৪ হাজার ৪০০ টাকা, আসা-যাওয়া মিলে ৮ হাজার টাকা। ওপেন ডেকের এক পথে ৪ হাজার, আসা-যাওয়ার ভাড়া ৬ হাজার ৫০০ টাকা। আসা-যাওয়া মিলে দুজনের ভিআইপি কেবিন ৪০ হাজার টাকা, রয়্যাল কেবিন ৫৫ হাজার টাকা, ভিভিআইপি কেবিন ৬০ হাজার টাকা। এ ছাড়া ৪ জনের ভিআইপি প্রেসিডেনশিয়াল প্লাস কেবিন বা ফ্যামিলি বাংকার কেবিন ৬০ হাজার টাকা ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে।

শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন