default-image

জাপানের উৎপাদনকারীরা  যদি চীন থেকে ভারত বা বাংলাদেশে কারখানা স্থানান্তর করে তাহলে তাদের ভর্তুকির দেওয়া বলে ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার। আজ শুক্রবার জাপানের নিক্কেই এশিয়ান রিভিউয়ের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ২০২০ অর্থবছরের জন্য সরকারের পরিপূরক বাজেটে দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় দেশগুলোতে উৎপাদন সরিয়ে নেওয়া কারখানাগুলোর জন্য ভর্তুকি বাবদ ২ হাজার ৩৫০ কোটি ইয়েন বা ২২ কোটি ১০ লাখ ডলার বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

গতকাল বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দফায় ভর্তুকির জন্য আবেদন চেয়ে সরকার যে ঘোষণা দিয়েছে, তাতে কারখানা স্থানান্তরে ভর্তুকি সুবিধা দেওয়ার ক্ষেত্রে আসিয়ান দেশগুলোর সঙ্গে ভারত ও বাংলাদেশকেও রেখেছে।ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয় কারখানা স্থানান্তরের সম্ভাব্যতা যাচাই ও পরীক্ষামূলক উৎপাদনের জন্যও শিল্পোদ্যোক্তারা ভর্তুকি পেতে পারেন। মোট সহায়তার পরিমাণ ১০ কোটি ডলারে পোঁছাতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে।

এই কর্মসূচির লক্ষ্য, সরবরাহ চেইন বিশেষ করে চীনের ওপর জাপানের নির্ভরতা কমিয়ে আনা এবং জরুরি পরিস্থিতিতে চিকিৎসা সরবরাহ এবং বৈদ্যুতিক পণ্যগুলোর অবিচ্ছিন্ন প্রবাহ নিশ্চিত করা। মূলত করোনা মহামারির শুরুতে কঠোর লকডাউনে যায় চীন। তখন এই ইস্যুগুলো উঠে আসে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, জুলাইতে প্রথম দফায় ভর্তুকি পেয়েছে ৩০টি কোম্পানি। ওই কোম্পানিগুলো ভিয়েতনাম ও লাওসে উৎপাদন কার্যক্রম স্থানান্তর করেছে। এ ছাড়া আরও ৫৭টি কোম্পানি উৎপাদন জাপানে স্থানান্তরের জন্য সুবিধা পাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন