মফিজুর রহমান বলেন, দ্বিতীয় দফায় প্রণোদনা ঋণের ৩০ শতাংশ পাবেন নারী উদ্যোক্তা। তা ছাড়া এসএমই ক্লাস্টারে ১০, উৎপাদন খাতে ৩০ এবং ট্রেডিং খাতে ৩০ শতাংশ সুদে ঋণ মিলবে। মোট ঋণগ্রহীতার অর্ধেকই পাবেন ২০ লাখ টাকার কম ঋণ। ঋণের সর্বোচ্চ সীমা ৭৫ লাখ থেকে কমিয়ে ৫০ লাখ টাকা করা হতে পারে। আগে প্রণোদনা ঋণ না পাওয়া উদ্যোক্তারা এবার অগ্রাধিকার পাবেন।

আগামী বৃহস্পতিবার এসএমই ফাউন্ডেশনের পরিচালক পর্ষদের সভায় ঋণ বিতরণের সংশোধিত নীতিমালা অনুমোদনের পর ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে এ নিয়ে চুক্তি হবে বলে জানান মফিজুর রহমান। তিনি বলেন, গত ২০২০-২১ অর্থবছর ১০০ কোটি টাকার প্রণোদনা ঋণ বিতরণ করা হয়। এবার প্রত্যন্ত অঞ্চলের উদ্যোক্তাদের ঋণের আওতায় আনতে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক (বিকেবি), রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকসহ (রাকাব) কয়েকটি নতুন সরকারি-বেসরকারি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি সইয়ের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

এসএমই ফাউন্ডেশন জানায়, ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে সর্বোচ্চ ২৪টি সমান মাসিক কিস্তিতে ঋণ পরিশোধ করা যাবে।

শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন