বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পোশাক খাতের ১৩৩টি রুগ্‌ণ কারখানার মূল ঋণ ও আয় খাতে নিট সুদ অবসায়নের জন্য অর্থসচিবের সহযোগিতা চান বিজিএমইএর নেতারা। এ ছাড়া যেসব উদ্যোক্তা নিরাপদে ব্যবসা বন্ধ করতে চান, তাঁদের জন্য ‘চ্যাপটার ১১’ অনুসরণ করে ব্যবসা থেকে প্রস্থান নীতি প্রণয়নের অনুরোধ জানান তাঁরা।

বিজিএমইএর নেতারা বলেন, কোনো শিল্পগোষ্ঠীর একটি প্রতিষ্ঠান ঋণখেলাপি হলে তাদের সহযোগী অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ঋণপ্রবাহ বন্ধ হয়ে যায়। ফলে ব্যবসা পরিচালনা দুঃসাধ্য হয়ে পড়ে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে ব্যবসাও বন্ধ হয়ে যায়। তাই কোনো গ্রুপের একটি প্রতিষ্ঠান খেলাপি হলে সহযোগী অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের চলমান ঋণ ও ব্যাংক–সুবিধাদি বন্ধ না করে খেলাপি ঋণ পুনঃ তফসিলীকরণের সুযোগ দিয়ে ঋণসুবিধা বহাল রাখতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার অনুরোধ করেন তাঁরা।

করোনার কারণে গত বছরের মার্চে একের পর এক ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিতাদেশ আসতে থাকে। তখন পোশাকশিল্পের মালিকেরা আতঙ্কিত হয়ে পড়লে সরকার রপ্তানিমুখী শ্রমিকদের পরের তিন মাস এপ্রিল, মে ও জুনের মজুরি দেওয়ার জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করে। এই ঋণের বিপরীতে সেবা মাশুল ছিল ২ শতাংশ। পরে পোশাকশিল্পের মালিকেরা আরও এক মাসের মজুরি দিতে আবার ঋণ দাবি করেন। সরকারও তা মেনে নেয়। তখন তহবিলের আকার বেড়ে ১০ হাজার ৫০০ কোটি টাকায় উন্নীত হয়। তবে চতুর্থ মাসের জন্য ঋণের মালিকদের সেবা মাশুল ধরা হয় সাড়ে ৪ শতাংশ। বাকি সাড়ে ৪ শতাংশ সরকারের ভর্তুকি দেওয়ার কথা।

এই তহবিল থেকে প্রায় ১ হাজার ৮০০ কারখানার মালিক ঋণ নিয়েছেন। ঋণের গ্রেস পিরিয়ড ছয় মাস। পরবর্তী ১৮ মাসের কিস্তিতে সেই ঋণ পরিশোধের শর্ত ছিল। তবে গত বছরের শেষ দিকে তৈরি পোশাকশিল্পের মালিকদের দুই সংগঠন বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ প্রণোদনা ঋণের গ্রেস পিরিয়ডের সময় বাড়ানোর দাবি জানায়। তখন অর্থ মন্ত্রণালয় ঋণ পরিশোধের সময় গত ১ মার্চ থেকে আরও ছয় মাস বাড়ানোর নির্দেশনা দেয়। সে জন্য এত দিন প্রণোদনা প্যাকেজ থেকে নেওয়া ঋণের কিস্তি দিতে হয়নি কারখানার মালিকদের।

শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন