বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশের পঞ্চম সর্বোচ্চ পণ্য রপ্তানি হয় ফ্রান্সে। দেশটিতে ওভেন ও নিট পোশাক, হোম টেক্সটাইল এবং জুতা রপ্তানি হয় বেশি। এসব পণ্য ছাড়াও প্লাস্টিক, হালকা প্রকৌশল পণ্য, হিমায়িত খাদ্য, সিরামিক, পাট ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানির বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে।
মো. জসিম উদ্দিন, সভাপতি, এফবিসিসিআই

সমঝোতা স্মারকে এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন এবং এমইডিইএফ ইন্টারন্যাশনালের ফ্রান্স-বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান পিয়েরে-জিন মালগোয়ারেস নিজ নিজ সংগঠনের পক্ষে সই করেন।

এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন বলেন, বাংলাদেশের পঞ্চম সর্বোচ্চ পণ্য রপ্তানি হয় ফ্রান্সে। দেশটিতে ওভেন ও নিট পোশাক, হোম টেক্সটাইল এবং জুতা রপ্তানি হয় বেশি। এসব পণ্য ছাড়াও প্লাস্টিক, হালকা প্রকৌশল পণ্য, হিমায়িত খাদ্য, সিরামিক, পাট ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানির বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত করতে বাংলাদেশের প্রচুর বিদেশি বিনিয়োগ প্রয়োজন। ফ্রান্সের শিল্পপ্রতিষ্ঠান, বিশেষ করে ক্রমবর্ধমান উৎপাদন ব্যয়ের কারণে যেসব খাতের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা কমছে, সেই শিল্পের বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে তাদের কারখানা স্থানান্তরের আহ্বান জানান তিনি।

বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআইয়ের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী, সহসভাপতি এম এ মোমেন, মো. আমিনুল হক, মো. আমিন হেলালি, পরিচালক মো. রেজাউল করিম, মো. তবারাকুল তোসাদ্দেক হোসেন খান, প্রীতি চক্রবর্তী, শমী কায়সার, সৈয়দ সাদাত আলমাস কবির, নাদিয়া বিনতে আমিন, মো. সাইফুল ইসলাম, খান আহমেদ, ফেরদৌসী বেগম, সাবেক সহসভাপতি মো. হেলাল উদ্দিন, সাবেক পরিচালক প্রবীর কুমার সাহা, খন্দকার মশিউজ্জামান, মো. মহব্বত উল্লাহ, এমসিসিআই ঢাকার সভাপতি নিহাদ কবির, বেঙ্গল গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক জেসমিন আক্তার ও সাইফুল আলম, পিপলস এনার্জির পরিচালক সাজেদা জামান।

শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন