বিজ্ঞাপন

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বন্দরে পড়ে থাকা গাড়ির নিলাম কার্যক্রম আবার শুরু হবে, এমন তথ্য জানার পর তা আগামী সাত মাস বন্ধ রাখতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ও মোংলা কাস্টমস কমিশনারকে আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠি দিয়েছে বারভিডা।

এদিকে বারভিডা আজ বুধবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানিয়েছে, করোনার কারণে এক বছরের বেশি সময় ধরে গাড়ির ব্যবসায়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। চলমান এই মহামারির বিপর্যয় থেকে অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের জন্য সরকার স্বল্প সুদে যে আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজ প্রদান করেছিল সেখান থেকে বারভিডার কোনো সদস্য ঋণ পাননি। তারপরও তাঁরা করোনাকালে কয়েক হাজার গাড়ি বিক্রি করে সরকারকে বিপুল অঙ্কের রাজস্ব দিয়েছে।

করোনা দুর্যোগের বিপুল আর্থিক ক্ষতি ও বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে জরুরি ভিত্তিতে গাড়ির নিলাম আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত স্থগিত রাখার দাবি জানিয়ে বারভিডা বলেছে, এই কার্যক্রমের কারণে মোটরযান খাতের প্রকৃত বিনিয়োগকারীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে চলেছেন। সরকারের রাজস্ব আহরণ বিঘ্নিত হবে। বাজারের স্থিতিশীলতা বিনষ্ট হওয়ারও আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বারভিডার একজন নেতা প্রথম আলোকে জানান, মোংলা কাস্টমস হাউস ১৫৫টি গাড়ি নিলামে বিক্রি করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। যেসব গাড়ি নিলাম করা হবে তার মধ্যে রয়েছে রিকন্ডিশন্ড টয়োটা অ্যাকুয়া, টয়োটা ক্রাউন, টয়োটা হাইয়েস, টয়োটা টাউনএসি, টয়োটা এক্সিও, টয়োটা প্রভোক্স, টয়োটা প্রিমিও, টয়োটা এলিওন, সুজুকি সুইফট, প্রাইম মুভার প্রভৃতি। গাড়িগুলো বর্তমানে যে অবস্থায় রয়েছে সেই অবস্থায় নিলামে বিক্রি করা হবে।

গত ডিসেম্বরেও মোংলা বন্দরে পড়ে থাকা রিকন্ডিশন্ড গাড়ির নিলাম এক বছরের জন্য স্থগিত করার দাবি জানিয়েছিল বারভিডা। ওই সময় বন্দরটিতে ২ হাজার ৮৩৪টি আমদানি করা গাড়ি আটকা ছিল। তার মধ্যে প্রায় ১ হাজার ১০০টি গাড়ি নিলামে তোলার প্রক্রিয়া চালাচ্ছিল মোংলা কাস্টমস।

শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন