বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যাঁরা সিআইপি কার্ড পেয়েছেন
২০১৮ সালের জন্য সবচেয়ে বেশি সিআইপি কার্ড পেয়েছেন নিট পোশাক রপ্তানির সঙ্গে যুক্ত ব্যবসায়ীরা। এ খাত থেকে মোট ৪১ জনকে সিআইপি মর্যাদা দিয়েছে সরকার।

নিট পোশাক থেকে সিআইপিপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা হলেন গাওহার সিরাজ জামিল, মো. গোলাম মুস্তফা, ফকির আখতারুজ্জামান, অহিদুল হক, আসলাম সানী, মো. সামছুল আলম, অমল পোদ্দার, মাসুদুজ্জামান, নাবিল উদ দৌলাহ, মোখলেছুর রহমান, নাজীম উদ্দিন আহমেদ, সৈয়দ এ কে আনোয়ারুজ্জামান, মহিউদ্দিন ফারুকী, মো. আসাদুল ইসলাম, কে এম রেজাউল হাসানাত, প্রীতি পোদ্দার, মো. জুবায়ের মন্ডল, মশিউর রহমান চমক, মো. মফিজুল ইসলাম, আবদুল কাদির মোল্লা, মো. কামাল উদ্দিন, উত্তম কুমার সাহা, এ এস এম কামরুল আহসান, শফিকুল ইসলাম সরকার, কানিজ ফাতেমা, মো. লুৎফর রহমান, আসিফ মঈন, মো. জাহাঙ্গীর আলম, মোহাম্মদ সালমান, মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির চৌধুরী, মো. মোস্তফা-ই-জামান, রাকিবুল কবির, নাফিস সিকদার, মো. শামসুজ্জামান, খলিলুর রহমান, এম মহিউদ্দিন চৌধুরী, শাহরিয়ার আহমেদ, সুলতানা জাহান, আহমেদ আরিফ বিল্লাহ, এ বি এম শামছুদ্দিন, মো. শামীম রেজা ও মো. জাহাঙ্গীর আলম খান।

সিআইপি সুবিধা পাওয়া দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্যক্তিরা নির্বাচিত হয়েছেন ওভেন পোশাক রপ্তানিকারকদের মধ্য থেকে। এ খাত থেকে নির্বাচিত ২৩ সিপিআই কার্ডধারী হলেন শরীফ জহীর, মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেন, ইনামুল হক খান, মিরান আলী, আহসান কবির খান, তানভির আহমেদ, মুস্তাজিরুল শোভন ইসলাম, মো. আবুল কাসেম, মো. আলী আজিম খান, মো. রেফায়েত উল্লাহ খান, মো. খসরু চৌধুরী, ওয়াসিম রহমান, মো. সিদ্দিকুর রহমান, মুজিবুর রহমান, এম সাজ্জাদ আলম, হুমায়ুন রশিদ, এ কে আজাদ, আবদুস সালাম মুর্শেদী, মো. আতিকুল ইসলাম, লুৎফি মাওলা আইয়ুব, মো. আজিজুল ইসলাম, সেঁজুতি দৌলাহ ও সৈয়দ নুরুল ইসলাম।

এর বাইরে কাঁচা পাট রপ্তানিতে হাসান আহমেদ; পাটজাত পণ্য রপ্তানিতে সেখ নাসির উদ্দিন, মো. ফজলুর রহমান ও মোহাম্মদ আনিসুর রাজ্জাক; চামড়াজাত পণ্য রপ্তানিতে জিয়াউর রহমান, মোহাম্মদ সায়ফুল ইসলাম, মোহাম্মদ নাজমুল হাসান, মো. হেদায়েত উল্লাহ ও জয়নাল আবেদীন মজুমদার; হিমায়িত খাদ্য রপ্তানিতে ইকবাল আহমেদ, শ্যামল দাস, মো. শাহিন হাওলাদার, এস এম মিজানুর রহমান, মো. মেহেদী হাসান, মো. তৌহিদুর রহমান ও মাসুদ পারভেজ সিআইপি কার্ড পেয়েছেন।

কৃষিজাত পণ্য রপ্তানিতে মোহাম্মদ মনসুর, গোবিন্দ চন্দ্র সাহা, ওমর ফারুক, হারুন অর রশিদ, শেখ আবদুল কাদের ও মো. রফিকুল ইসলাম লিটন; কৃষি প্রক্রিয়াকরণ পণ্য রপ্তানিতে মো. এনামুল হাসান খান, অঞ্জন চৌধুরী, আবদুল মোতালেব ও আহসান খান চৌধুরী; বিশেষায়িত টেক্সটাইল ও হোম টেক্সটাইল রপ্তানিতে মোহাম্মদ আবদুল্লাহ্ জাবের, মাসুদ দাউদ আকবানী ও আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তালহা এ মর্যাদা পেয়েছেন।

অন্য খাতগুলোর মধ্যে হালকা প্রকৌশল পণ্য রপ্তানিতে মোহাম্মদ মিজানুর রহমান ভূঁইয়া ও সুব্রত পাল; ওষুধ পণ্য রপ্তানিতে স্যামুয়েল এস চৌধুরী ও নাজমুল হাসান; হস্তশিল্পজাত দ্রব্য রপ্তানিতে শফিকুল আলম সেলিম, মো. তৌহিদ বিন আবদুস সালাম, মো. বেলাল হোসেন, বার্থা গীতি বাড়ৈ ও আবু আলম চৌধুরী সিআইপি সুবিধা পাচ্ছেন।
সিরামিক পণ্য রপ্তানিতে সৈয়দ মুহাম্মদ ফারুকী হাসান ও মো. জামির হোসেন; প্লাস্টিক পণ্য রপ্তানিতে রথীন্দ্রনাথ পাল ও জসিম উদ্দীন; কাপড় রপ্তানিতে কুতুব উদ্দিন আহমেদ, সাখাওয়াত হোসেন, মো. মোজাফ্ফর হোসেন, আবদুল্লাহ মোহাম্মদ জুবায়ের, মোহাম্মদ আবদুর রহিম ও কম্পিউটার প্রযুক্তি পণ্য রপ্তানিতে এ এস এম মহিউদ্দিন মোনেম ও নাভিদুল হককে সিআইপি কার্ড দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া বিবিধ শ্রেণি থেকে রত্না পাত্র, মোহাম্মদ আলী খোকন, মীর নাসির হোসেন, আবদুল মমিন মণ্ডল, রফিকুল ইসলাম খান, কানিজ ফাতেমা জেরিন, মো. রবিউল আলম, কামাল উদ্দিন আহমেদ, রানা শফিউল্লাহ, সৈয়দ সিরাজুল ইসলাম, মো. মনির হোসেন, আবদুছ ছামাদ, মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম (নোমান), আমের আলী হুসাইন, গাজী আবুল কাশেম, এস এ এইচ এম তাওহীদ, ফিরোজ আলম, চৈতন্য কুমার দে (চয়ন), মো. আইন উদ্দিন (কামাল), সৌমেন্দু বসু, মো. বাদশা মিয়া, নুর-ই ইয়াছমিন ফাতেমা, সালাউদ্দিন আলমগীর, মো. তানভীর খান, মো. ওমর ফারুক ও মো. মোজহারুল হক পেয়েছেন সিআইপির মর্যাদা।

রপ্তানির বিভিন্ন খাতে সিআইপি মর্যাদা পাওয়া এসব ব্যক্তির বাইরে পদাধিকারবলে ট্রেড ক্যাটাগরি থেকে এফবিসিসিআইয়ের মোট ৩৮ জন পরিচালক সিআইপি কার্ড পেয়েছেন। তাঁদের মধ্যে এফবিসিসিআইয়ের ‘ক’ ক্যাটাগরিভুক্ত চেম্বার গ্রুপ থেকে নির্বাচিত হয়েছেন ১০ জন। তাঁরা হলেন শেখ ফজলে ফাহিম, হাসিনা নেওয়াজ, মো. নিজাম উদ্দিন, দিলীপ কুমার আগরওয়ালা, মো. আনোয়ার সাদাত সরকার, মো. রেজাউল করিম রেজনু, গাজী গোলাম আশরিয়া, তাবারাকুল তোসাদ্দেক হোসেন খান টিটু, মো. কোহিনুর ইসলাম ও মো. আতাউর রহমান ভূঁইয়া।

এফবিসিসিআইয়ের ‘খ’ ক্যাটাগরিভুক্ত অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপ থেকে সিআইপি কার্ড পাওয়া ১২ জন হলেন মো. মুনতাকিম আশরাফ, মীর নিজাম উদ্দিন আহমেদ, মো. শফিকুল ইসলাম ভরসা, শমী কায়সার, রাশেদুল হোসেন চৌধুরী (রনি), শাফকাত হায়দার, কাজী এরতেজা হোসেন, আমজাদ হোসেন, নিজাম উদ্দিন রাজেশ, হারুন-অর-রশিদ, এস এম জাহাঙ্গীর হোসেন ও আবুল আয়েছ খান।

ক্যাটাগরি ‘গ’ভুক্ত চেম্বার গ্রুপ থেকে সিপিআই কার্ড পাওয়া সাত পরিচালক হলেন প্রীতি চক্রবর্তী, মাহবুবুল আলম, এ কে এম আফতাব-উল-ইসলাম, নাজ ফারহানা আহমেদ, কাজী আমিনুল হক, গোলাম মঈনুদ্দিন ও মো. মনিরুজ্জামান।

আর ‘ঘ’ ক্যাটাগরিতে থাকা অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপ থেকে সিআইপি কার্ড পাওয়া পরিচালকেরা হলেন মো. নজরুল ইসলাম মজুমদার, মোহাম্মদ ফারুক, শামীম আহসান, এস এম শফিউজ্জামান, কাজী বেলায়েত হোসেন, শেখ কবির হোসেন, মো. ইউসুফ আশরাফ, তপন চৌধুরী ও আলমগীর শামসুল আলামিন।

শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন