বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হাজারীবাগ থেকে অনেক ট্যানারি এখনো সাভারে যেতে পারেনি। কারণ, তারা সাভারে প্লট পায়নি। তারা যদি সাভারে যেত, তাহলে পরিস্থিতি কী হতো। বর্তমান সিইটিপিতে যেহেতু বর্জ্য পরিশোধনে ঘাটতি আছে, সে জন্য কিছু ট্যানারি চালু রেখে আবার কিছু ট্যানারি বন্ধ রেখে রেশনিং করতেও আমরা রাজি আছি। আমাদের ইমেজ–সংকট যাতে আর না বাড়ে, সে জন্য আমরা সরকারের সহযোগিতা চাই। সিইটিপিতে মারাত্মক সমস্যা আছে। এটাকে আপগ্রেড করলে সমস্যার সমাধান হবে। আমাদের ব্যবসায়ে জরুরি ভিত্তিতে ঘুরে দাঁড়াতে হবে।

চামড়াশিল্প নগর বন্ধ করে দেওয়া হলে কাল থেকে চামড়া আমদানি করতে হবে। স্থানীয় বাজার সমস্যায় পড়বে। চামড়াশিল্প নগর বন্ধ করে দেওয়া সমাধান নয়। অপরিশোধিত বর্জ্য কিছুতেই যাতে ধলেশ্বরী নদীতে না যায়, সেটি নিশ্চিত করতে হবে। আমরা চাই না অপরিশোধিত বর্জ্য নদীতে পড়ুক।

ট্যানারিতে উৎপাদিত চামড়ার তরল বর্জ্য পরিশোধন করে নদীতে ফেলার কথা। এক ফোঁটা পানি গেলেও সেটা যাতে পরিশোধন করে ফেলা হয়। এটাই বলা ছিল।

সিইটিপিতে চারটি মডিউল রয়েছে। প্রতিবছর এসব পরিষ্কার করতে হয়। কিন্তু এ নিয়ম মানা হয় না। একটি মডিউল পরিষ্কার করা হয়েছে। তিনটিতে পলি পড়ে আছে। পলি পড়ার কারণে বর্জ্য পরিশোধন করা যাচ্ছে না। বর্তমানে যে সিইটিপি আছে, সেটাকে শতভাগ ব্যবহার করার উপযোগী কর্মপরিকল্পনা করা উচিত। কোরবানির সময় চাপ কমাতে প্রয়োজনে হিমাগার করা যেতে পারে। কোরবানির সময় দুই মাস চামড়া সংরক্ষণের জন্য হিমাগারে রাখা যেতে পারে। বে ও অ্যাপেক্স দুটি ইটিপি করার অনুমতি পেয়েছে। তারা যদি ইটিপির কাজ শেষ করে, তাহলে সিইটিপির ওপর চাপ কমবে।

শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন