‘আইনের প্রয়োগ না হলে নির্দেশিকা দিয়ে কোনো লাভ হবে না’

অনলাইনে পণ্য ও সেবা কেনাবেচার জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয় গত রোববার যে ডিজিটাল কমার্স পরিচালনা নির্দেশিকা করেছে, তাকে ইতিবাচকভাবেই নিয়েছে এ ধরনের ব্যবসায়ের সঙ্গে যুক্ত পক্ষগুলো। তবে আইন প্রয়োগের বিষয়ে জোর দেওয়ার পরামর্শও দিয়েছে কোনো কোনো পক্ষ।

আজ মঙ্গলবার অনলাইনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নির্দেশিকাটির নানা দিক সাংবাদিকদের কাছে তুলে ধরেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। বাণিজ্যসচিব তপন কান্তি ঘোষের সঞ্চালনায় এ সময় বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের চেয়ারম্যান মো. মফিজুল ইসলাম, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ডব্লিউটিও সেলের মহাপরিচালক মো. হাফিজুর রহমান, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বাবলু কুমার সাহা বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠানে বলা হয়, আগামী দুই বছরের মধ্যে ই-কমার্সের ব্যবসা ৩০০ কোটি মার্কিন ডলার ছাড়িয়ে যাবে। ফলে যাঁরা ব্যবসা করছেন, তাঁদের কিছুটা স্বাধীনতা দিতে হবে।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির বলেন, নির্দেশিকা তৈরি নিঃসন্দেহে মাইলফলক। তবে আইনের প্রয়োগ না হলে বা আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে সম্পৃক্ত না করলে নির্দেশিকা দিয়ে কোনো লাভ হবে না। কপিরাইট আইন যেমন থাকলেও কোনো প্রয়োগ নেই, এটি যেন সে রকম না হয়।

আইনের প্রয়োগে বাংলাদেশ ব্যাংক, সিটি করপোরেশনসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয় থাকা জরুরি বলে মনে করেন সৈয়দ আলমাস কবির। তিনি বলেন, আগামী দুই বছরের মধ্যে ই-কমার্সের ব্যবসা ৩০০ কোটি মার্কিন ডলার ছাড়িয়ে যাবে। ফলে যাঁরা ব্যবসা করছেন, তাঁদের কিছুটা স্বাধীনতা দিতে হবে। হাত-পা বেঁধে সাঁতার কাটতে দিলে হবে না। আইনকানুন মেনে তারা যাতে ব্যবসায়ে চমক আনতে পারে, সেই সুযোগও তৈরি করতে হবে।

নির্দেশিকা তৈরি নিঃসন্দেহে মাইলফলক। তবে আইনের প্রয়োগ না হলে বা আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে সম্পৃক্ত না করলে নির্দেশিকা দিয়ে কোনো লাভ হবে না।
সৈয়দ আলমাস কবির, সভাপতি, বেসিস

ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ইক্যাব) সভাপতি শমী কায়সার বলেন, ই-কমার্সকে অধিকতর জবাবদিহি ও স্বচ্ছতার মধ্যে আনার জন্যই নির্দেশিকা হয়েছে। এর মধ্যে ভোক্তাস্বার্থ এবং উদ্যোক্তাদের সমতার সুযোগ উভয় দিকই তুলে আনা হয়েছে। অস্বাভাবিক অফার যে দেওয়া যাবে না, উঠে এসেছে তা–ও। খাতটির দ্রুত প্রবৃদ্ধির ফলে সমস্যা তৈরি হয়েছে। প্রয়োজনে আইনকানুন বদলানোও যাবে।
সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি নির্দেশিকার মূল বিষয়গুলো লিখিত আকারে পাঠ করেন।

আরও পড়ুন

আর বাণিজ্যসচিব তপন কুমার ঘোষ বলেন, ‘গণমাধ্যম ও সামাজিক গণমাধ্যমের মাধ্যমে জানতে পারছিলাম এ খাতের বিস্তৃতির ব্যাপারে। সীমাহীন অফার দিয়ে গ্রাহক টানা হচ্ছিল। এক মাস আগে এ মন্ত্রণালয়ে যোগ দিয়ে ভোক্তা ও ব্যবসাবান্ধব নির্দেশিকা তৈরিতে গুরুত্ব দিই। আশা করছি, এর ইতিবাচক ফল পাওয়া পাবে উভয় শ্রেণি।’

আরও পড়ুন