বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) বর্তমানে ১ হাজার ৮০৪ কোটি টাকা পরিশোধিত মূলধনের কোম্পানি। কিন্তু সাত অর্থবছর ধরে কোনো তহবিলেই নিট মুনাফার টাকা রাখছে না। ফলে প্রতিষ্ঠানটির অধস্তন কর্মচারীরা মুনাফার ভাগ পাচ্ছেন না। যদিও আইন অনুযায়ী তাঁদের তা পাওয়ার কথা। প্রতিষ্ঠানটির জনবল এখন ৩৭০। রক্ষণশীলভাবে হিসাব করলেও নিট মুনাফার অংশ পাওয়ার কথা অন্তত ৩০০ জনের।

মুনাফা যাতে না দিতে হয় সে জন্য ডিএসই গত বছরের ১০ ডিসেম্বর অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগকে চিঠি দিয়েছে। দীর্ঘদিন পর ১৫ সেপ্টেম্বর আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ এ ব্যাপারে মতামত চেয়ে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠিয়েছে। আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব শেখ মোহাম্মদ সলিম উল্লাহর কাছে সম্প্রতি এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

ডিএসইর যুক্তি হচ্ছে, তারা কোনো শ্রমিকভিত্তিক প্রতিষ্ঠান নয়। এখানে সবার জন্য আকর্ষণীয় বেতনকাঠামোসহ অন্যান্য সুবিধা রয়েছে এবং পুঁজিবাজার থেকে দীর্ঘ মেয়াদে অর্থ সংগ্রহে সহায়তার মাধ্যমে ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারণ, শিল্পায়ন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে।

ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তারিক আমিন ভূঁইয়ার সঙ্গে ২০ সেপ্টেম্বর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে প্রথম আলোকে জানান, তিনি ডিএসইতে যোগ দিয়েছেন অল্পদিন হয়েছে। তাই এ বিষয়ে বিশদ কিছু বলতে পারছেন না।

আইন অনুযায়ী, প্রতিবছর শেষ হওয়ার ৯ মাসের মধ্যে আগের বছরের বার্ষিক নিট মুনাফার ৫ শতাংশ রাখতে হবে তিনটি তহবিলে। ৫ শতাংশ মুনাফা রাখার ভাগটি এ রকম: ৮০ শতাংশ শ্রমিক অংশগ্রহণ তহবিল, ১০ শতাংশ শ্রমিককল্যাণ তহবিল এবং বাকি ১০ শতাংশ শ্রমিককল্যাণ ফাউন্ডেশন তহবিলে জমা রাখতে হবে।

শ্রম আইনে কোম্পানির মালিক বা অংশীদার বা পরিচালনা পর্ষদের সদস্য এবং ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ অথবা প্রধান নির্বাহী ছাড়া পদমর্যাদা নির্বিশেষে কমপক্ষে ৯ মাস চাকরি করেছেন এমন ব্যক্তিদের মধ্যে অংশগ্রহণ তহবিলে জমা হওয়া অর্থের দুই-তৃতীয়াংশ সমানভাবে নগদে বণ্টন করে দেওয়ার কথা বলা আছে।

ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪-১৫ থেকে ২০১৯-২০ পর্যন্ত ছয় অর্থবছরে ডিএসই নিট মুনাফা অর্জন করেছে ৬০৬ কোটি টাকা। ২০২০-২১ অর্থবছরের হিসাব এখনো পাওয়া যায়নি। আগের ছয় অর্থবছরের নিট মুনাফার ৫ শতাংশ হিসাবে বাধ্যতামূলকভাবে তিনটি তহবিলে ডিএসইর ৩০ কোটি ৩০ লাখ টাকা রাখার কথা।

শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ওই তিনটি তহবিলে ডিএসইর নিট মুনাফার টাকা না রাখার সুযোগ নেই।

এই বিষয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করেও শ্রম ও কর্মসংস্থানসচিব মো. এহছানে এলাহীর বক্তব্য জানা যায়নি।

শেয়ারবাজার থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন