বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, সম্মেলনে সরকারের একাধিক মন্ত্রীসহ বিনিয়োগসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণের কথা ছিল। কিন্তু সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ সফরে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় সরকারের মন্ত্রী ও উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়। এ অবস্থায় নিষেধাজ্ঞা আরোপের দিনে তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্তে এ সম্মেলন সাময়িকভাবে স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। তবে বিএসইসি বলছে, সম্মেলনে আমন্ত্রিত কাতারের কয়েকজন মন্ত্রীর শিডিউল না মেলায় এ আয়োজন আপাতত স্থগিত করা হয়েছে। পরবর্তী সময়ে সুবিধাজনক সময়ে এ আয়োজন করা হবে।

বিএসইসির আয়োজনে বিদেশ অনুষ্ঠিত রোডশোর সঙ্গে সম্পৃক্ত সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক মাহবুবুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, কাতার সরকারের অনুরোধে সম্মেলনটি স্থগিত করা হয়েছে।

জানা গেছে, স্থগিত হয়ে যাওয়া কাতারের এ সম্মেলনে সরকারের তিনজন মন্ত্রী, একজন উপদেষ্টা, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একজন জ্যেষ্ঠ সচিব, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা), বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) ও বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেপজা) চেয়ারম্যানসহ সরকারি বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও দপ্তরের ১৫ কর্মকর্তার অংশগ্রহণের কথা ছিল। যেসব মন্ত্রীর এ সম্মেলনে যাওয়ার কথা ছিল, তাঁরা হলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম ও রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম।

আজ বৃহস্পতিবার অর্থ মন্ত্রণালয় সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের পরিপত্র জারি করে। তাতে বলা হয়, করোনা-পরবর্তী অর্থনীতি পুনরুদ্ধার ও বর্তমান বৈশ্বিক সংকটের প্রেক্ষাপটে পুনরায় আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত এক্সপোজার ভিজিট, শিক্ষাসফর, এপিএ এবং ইনোভেশনের আওতামুক্ত ভ্রমণ ও ওয়ার্কশপ বা সেমিনারে অংশগ্রহণসহ সব ধরনের বৈদেশিক ভ্রমণ বন্ধ থাকবে। এ আদেশ উন্নয়ন বাজেট ও পরিচালন বাজেট উভয় ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে। অবিলম্বে আদেশটি কার্যকর হবে।

প্রসঙ্গত, গত বছর থেকে ধারাবাহিকভাবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিনিয়োগ সম্মেলনের আয়োজন করে আসছিল বিএসইসি। ইতিমধ্যে দুবাই, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, সুইজারল্যান্ডে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শেয়ারবাজার থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন