default-image

শেয়ারবাজারে ঋণের সুদ কমানোর সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে নতুন করে চার মাস সময় পাচ্ছে ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো। পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সঙ্গে শেয়ারবাজারের শীর্ষ ৩০ ব্রোকারেজ হাউসের প্রতিনিধিদের এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বৈঠকে ব্রোকারেজ হাউসের পক্ষ থেকে সুদহার কমানোর সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে কিছুটা সময় চাওয়া হয়। তারই পরিপ্রেক্ষিতে সুদহার-সংক্রান্ত নির্দেশনা বাস্তবায়নের সময় চার মাস পিছিয়ে দেওয়া হয়। বিএসইসির কমিশনার শেখ শামসুদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে গতকাল রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বিএসইসি কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বিএসইসির নির্দেশনা অনুযায়ী, আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শেয়ারবাজারে শেয়ারের বিপরীতে দেওয়া ঋণের সুদহার সর্বোচ্চ ১২ শতাংশে নামিয়ে আনার কথা। কিন্তু ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, এত কম সময়ে সব ঋণের সুদহার কমিয়ে আনার সিদ্ধান্তটি কার্যকর করা কঠিন। তা ছাড়া এখনো ঋণদাতা অনেক প্রতিষ্ঠানকে দুই অঙ্কের সুদে টাকা ধার এনে তা বিনিয়োগকারীদের মধ্যে ঋণ হিসেবে বিতরণ করা হচ্ছে। সুদ ১২ শতাংশ নামিয়ে আনা হলে তাতে অনেক প্রতিষ্ঠান লোকসানে পড়বে। এ কারণে ঋণদাতা অনেক প্রতিষ্ঠান সময় বাড়ানোর আবেদন জানায় গতকালের বৈঠকে।

বিজ্ঞাপন

তাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিএসইসি বলছে, আগামী চার মাস এ সিদ্ধান্ত কেউ বাস্তবায়ন করতে না পারলে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেবে না নিয়ন্ত্রক সংস্থা।
এ ছাড়া গতকালের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, এখন থেকে শীর্ষ ব্রোকারেজ হাউসগুলোর সঙ্গে প্রতি মাসে একবার বাজার পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক হবে। সেখানে বাজারের নানা সমস্যা ও তার সমাধানের বিষয়ে আলোচনা হবে।

বৈঠকের বিষয়ে জানতে চাইলে বিএসইসির মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম প্রথম আলোকে বলেন, ১ ফেব্রুয়ারি থেকে সুদহার কমানোর নির্দেশনাটি কেউ বাস্তবায়ন করতে না পারলে আগামী চার মাস তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে না বলে বৈঠকে বিএসইসির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

শেয়ারবাজার থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন