বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে এর প্রভাবে আজ লেনদেনের শুরুতে জাপানের নিকেই সূচক কমেছে ২ দশমিক ৪১ শতাংশ, টপিক্স সূচক কমেছে আড়াই শতাংশ। দক্ষিণ কোরিয়ার কোসপি সূচক কমেছে ১ দশমিক ৮৫ শতাংশ। হংকংয়ের হ্যাংসেং সূচক কমেছে ১ দশমিক ৮১ শতাংশ। চীনের সাংহাই কম্পোজিট সূচক ও শেনজেন কম্পোনেন্ট কমেছে প্রায় ১ শতাংশ করে। সূচক কমেছে অস্ট্রেলিয়ার শেয়ারবাজারেও। এই শেয়ারবাজারের এএসএক্স সূচক কমেছে ১ দশমিক ৩৯ শতাংশ।

বন্ডের ইল্ডের সঙ্গে এর দরের বিপরীতমুখী সম্পর্ক। গত সোমবার থেকেই বন্ডের ইল্ড বাড়ছে, এতে এর দরও কমে গেছে। এর প্রভাব পড়েছে ওয়াল স্ট্রিটের প্রযুক্তিভিত্তিক নাসডাক কম্পোজিট সূচকে, যা মার্চের পর থেকে তার সবচেয়ে খারাপ অবস্থা। মূলত বন্ডের দর কমলে প্রযুক্তি খাতের কোম্পানিগুলোর ওপর প্রভাব পড়ে বেশি। আজ জাপানের শেয়ারবাজারে প্রযুক্তি খাতের কোম্পানিগুলোর দর সবচেয়ে বেশি পড়তে দেখা গেছে।

জাপানের সফটব্যাংক গ্রুপের দর কমেছে ২ দশমিক ৩৩ শতাংশ। স্যামসাং ইলেকট্রনিকসের দর কমেছে ২ দশমিক ৬২ শতাংশ। চীনা কোম্পানি টেনসেন্টের দর কমেছে ৩ দশমিক ৩২ শতাংশ। আলিবাবার কমেছে ২ দশমিক ৯৮ শতাংশ। এ ছাড়া হ্যাংসেং প্রযুক্তি সূচক কমেছে ৩ দশমিক ১৮ শতাংশ।

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন