default-image

করোনার দৈনিক সংক্রমণ গতকাল রোববার রেকর্ড করলেও এশিয়ার বিনিয়োগকারীরা এখন এতে উদ্বিগ্ন নন। আজ সোমবার তাই লেনদেনের শুরু থেকে ঊর্ধ্বমুখী এশিয়ার বড় বড় পুঁজিবাজার।

আজ লেনদেনের শুরুতে জাপানের নিকেই সূচক বেড়েছে ১ দশমিক ৪৭ পয়েন্ট। আরেক সূচক টোকিও স্টক প্রাইস ইনডেক্স বেড়েছে ১ দশমিক ৫৫ শতাংশ। দক্ষিণ কোরিয়ার কোসপি সূচক বেড়েছে ১ দশমিক ১২ শতাংশ। অন্যদিকে মিশ্র প্রবণতা দিয়ে লেনদেন শুরু হয় চীনের পুঁজিবাজারে। সাংহাই কম্পোজিট সূচক কমলেও বেড়েছে শেনজেন কম্পোনেন্ট সূচক।

এ ছাড়া হংকংয়ের হ্যানসেং সূচক বেড়েছে শূন্য দশমিক ৪৭ শতাংশ। অস্ট্রেলিয়ার শেয়ারবাজারেও সূচক বেড়েছে। সিএনবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

গতকাল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউটিও) জানায়, কোভিড-১৯-এ বৈশ্বিক আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফ্লোরিডায় এক দিনে আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ হাজার। সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে এটিই এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের কোনো অঙ্গরাজ্যে এক দিনে সর্বোচ্চ আক্রান্ত।

ন্যাশনাল অস্ট্রেলিয়া ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা কৌশল বিভাগের প্রধান রে অ্যাট্রিল বলেন, ধীরে সংক্রমণের সংবাদকে এড়িয়ে চলছে মানুষ। ভ্যাকসিন আসছে, এমন বিষয় আশাবাদ জেগেছে মানুষের মনে। এ ছাড়া করোনার সংক্রমণ বাড়লেও মার্কিন অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াচ্ছে—এমন বিষয়গুলোও প্রভাব ফেলেছে পুঁজিবাজারে।

শেয়ারবাজারে উত্থান থাকলেও এশিয়ার বাজারে আজ তেলের দাম কমেছে। লেনদেনের শুরুতে বেঞ্চমার্ক ক্রুড অয়েলের দাম শূন্য দশমিক ৭২ শতাংশ কমেছে। প্রতি ব্যারেলের দাম এখন ৪২ দশমিক ৯৩ ডলার। বিশ্লেষকদের পূর্বাভাসে যুক্তরাষ্ট্রের তেলের দাম কমবে বলেও বলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন