বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রতন টাটার এই কোম্পানি চায়, আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে কাজের সময়সীমা যেন দিনের ২৫ শতাংশের বেশি না হয়। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মাত্র এক-চতুর্থাংশ, অর্থাৎ দিনে ঘণ্টা ছয়েক সময় অফিসের জন্য দিতে হবে কর্মীদের। সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘এটা ২৫/২৫ মডেল’। ইকোনমিক টাইমস সূত্রে এই খবর পাওয়া গেছে।

মহামারি পরিস্থিতির কারণে টিসিএস কর্তৃপক্ষ আগেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে, আগামী পাঁচ বছর মাত্র ২৫ শতাংশ কর্মী অফিসে এসে কাজ করবেন, বাকি ৭৫ শতাংশ কাজ করবেন বাড়ি থেকেই। ২০২৫ সাল পর্যন্ত ২৫ শতাংশ কর্মী দিয়েই অফিস চালানো হবে। বাকিরা বাড়ি থেকে কাজ করলেই হবে। কারণ, উৎপাদনশীলতা ১০০ শতাংশ সচল রাখতে এর বেশিসংখ্যক কর্মীকে অফিসে আনার প্রয়োজন আছে বলে মনে করে না টিসিএস।

টিসিএসের দাবি, কাজের সময়সীমা কমিয়ে আনার সিদ্ধান্তও ২৫/২৫ মডেলেরই অংশ। মঙ্গলবার টিসিএস মুখপাত্র বলেন, ‘এখন আমাদের ৫ শতাংশ সহকর্মী অফিসে বসে কাজ করছেন। চলতি বছরের শেষে আরও বেশিসংখ্যক কর্মীকে অফিসে এসে কাজ করার বিষয়ে উৎসাহিত করা হবে। তারপর আমরা ২৫/২৫ মডেল কার্যকর করব।’

অতিরিক্ত সময় অফিসে থাকার ফলে কর্মীদের মানসিক অবসাদ, স্বাস্থ্যহানি, কাজের প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলার মতো অনেক সমস্যা ঘটতে পারে বলে নানা সমীক্ষায় উঠে এসেছে। মানুষের ব্যক্তিগত জীবনের সঙ্গে কর্মজীবনের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। এতে ব্যক্তির জীবনে প্রভাব পড়ছে। সে দিকে লক্ষ রেখেই টিসিএস কর্তৃপক্ষের এই সিদ্ধান্ত বলে মনে করা হচ্ছে।

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন