তৃতীয় ১০০ বিলিয়ন 'ডলারম্যান'

বিজ্ঞাপন
default-image

গত শতকের আশির দশকে বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি) দ্য সিক্স মিলিয়ন ডলারম্যান নামে আমেরিকার একটি টিভি সিরিয়াল সম্প্রচার করে। সিরিয়ালটি দারুণ জনপ্রিয়তা পায়। আবার ১৯৮২ সালে সর্বকালের অন্যতম এক ফুটবলার ম্যারাডোনা ফাইভ মিলিয়ন ফাউন্ডে (ছয় বা সিক্স মিলিয়ন ডলারের বেশি) স্পেনের বার্সেলোনা ক্লাবে যোগ দেন। এটি ছিল তখন দলবদলের সর্বোচ্চ ট্রান্সফার ফির রেকর্ড। টিভি সিরিয়ালের নাম ও ম্যারাডোনার দাম দুটি আলাদা বিষয় হলেও সিক্স মিলিয়ন ডলার নিয়ে মোটামুটি আলোচনা হয়। কারণ, তখনকার দিনে সিক্স মিলিয়ন ডলারম্যান মানে অনেক বড় ধনী।

এখন অবশ্য মিলিয়নিয়ারের চেয়ে বিলিয়ন ডলারম্যান নিয়েই বেশি আলোচনা হয়। তবে বিশ্বে ১০০ বিলিয়ন বা ১০ হাজার কোটি ডলারের বেশি মূল্যের ধনসম্পদের মালিক এমন ধনী, অর্থাৎ সেন্টিবিলিয়নিয়ারের সংখ্যা মাত্র তিনজন। এর মধ্যে তৃতীয়জন গত বৃহস্পতিবার এই ১০০ বিলিয়ন ডলার ক্লাবে ঢুকলেন। তিনি ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ। তা–ও আবার মাত্র ৩৬ বছর বয়সেই তিনি বিশ্বের তৃতীয় শীর্ষ ধনী বা ‘সেন্টিবিলিয়নিয়ার’ হলেন।

ফেসবুকে গত বুধবার ছোট আকারের নতুন ভিডিও চালু করার পরপরই মার্ক জাকারবার্গের ভাগ্য আরও সুপ্রসন্ন হয়ে ওঠে। বিজ্ঞাপনটি বেশ দর্শকপ্রিয়তা অর্জন করে। বদৌলতে ফেসবুকের শেয়ারের দাম বেড়ে যায় ৬ শতাংশ। এর ফলে জাকারবার্গের ব্যক্তিগত সম্পদের মূল্য বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০০ বিলিয়ন ডলার। বিজ্ঞাপনটিতে ছিল বিতর্কিত চীনা টিকটকের বিপরীতে যুক্তরাষ্ট্রে ফটো শেয়ারিং অ্যাপ ইনস্টাগ্রাম রিল চালু করার ঘোষণা। জাকারবার্গ বর্তমানে ফেসবুকের ১৩ শতাংশ শেয়ারের মালিক।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প টিকটক ও বাইটড্যান্সের মতো চীনা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোকে মাইক্রোসফট বা অ্যাপলের মতো যুক্তরাষ্ট্রের কোনো প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করে দেওয়ার জন্য গত বৃহস্পতিবার একটি নির্বাহী আদেশ দেন। অন্যথায় চীনা কোম্পানিগুলোকে নিষিদ্ধ করা হবে। অবশ্য বর্তমানে ফেসবুকও চীনে নিষিদ্ধ রয়েছে। 

‘সেন্টিবিলিয়নিয়ার’ তালিকায় জাকারবার্গের সামনে আছেন ই–কমার্স প্রতিষ্ঠান আমাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস ও মাইক্রোসফটের সহ–প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস। চলমান করোনাকালে এই তিন প্রযুক্তি ব্যবসায়ীরই সম্পদ বেড়েছে। এর মধ্যে জেফ বেজোসের ৭ হাজার ৫০০ কোটি ডলার ও জাকারবার্গের ২ হাজার ২০০ কোটি ডলার বেড়েছে। বর্তমানে বিশ্বের এক নম্বর ধনী জেফ বেজোসের নিট সম্পদমূল্য ১৮ হাজার ৯৮০ কোটি ডলার। আর দ্বিতীয় শীর্ষ ধনী বিল গেটসের রয়েছে ১১ হাজার ৩৬০ কোটি ডলারের সম্পদ।  

জাকারবার্গের ফেসবুক, বিল গেটসের মাইক্রোসফট ও বেজোসের আমাজন এবং সেই সঙ্গে অ্যাপল ও অ্যালফাবেট—এই পাঁচ প্রযুক্তি কোম্পানির বর্তমান বাজারমূল্য যুক্তরাষ্ট্রের মোট দেশজ উৎপাদনের ৩০ শতাংশের সমান। গত দুই বছরেই এসব কোম্পানির বাজারমূল্য বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে। 

>

ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ মাত্র ৩৬ বছর বয়সে পৃথিবীর তৃতীয় শীর্ষ ধনী
তাঁর সম্পদের মূল্য ১০ হাজার কোটি ডলার

মার্ক জাকারবার্গ ২০১৬ সালে ঘোষণা দেন যে জীবদ্দশাতেই তিনি ফেসবুকের শেয়ারের ৯৯ শতাংশই দাতব্য প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে দান করে যাবেন। স্ত্রী প্রিসিলা চ্যানকে সঙ্গে নিয়েই তিনি দাতব্য প্রতিষ্ঠানটি খোলেন।

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় ২০০৪ সালে জাকারবার্গ ফেসবুক প্রতিষ্ঠা করেন, যা দ্রুতই ব্যাপক জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।

আমরা শুরুর দিকে আশির দশকে মিলিয়ন ডলারকে অনেক বড় অঙ্ক বলে উল্লেখ করেছিলাম। এখনো অবশ্য অনেক সময় ধনীদের মিলিয়নিয়ার বলে আখ্যায়িত করা হয়, যদিও বিশ্বজুড়ে প্রায় তিন হাজারের কাছাকাছি বিলিয়নিয়ার আছেন। প্রসঙ্গত, ১০ লাখে ১ মিলিয়ন ও ১০০ কোটিতে ১ বিলিয়ন।  

বিশ্বখ্যাত মার্কিন ম্যাগাজিন ফোর্বস ১৯৮৭ সালে যখন প্রথমবারের মতো বিলিয়নিয়ার লিস্ট নামে বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের তালিকা প্রকাশ করে, তখন তাতে ছিল মাত্র ১৪০ জনের নাম। এর মধ্যে ৪৪ জন ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের, বাকি ৯৬ জন সারা বিশ্বের। আর এখন এ রকম অতিধনীর সংখ্যা ২ হাজার ৮২৫। তখন ১০ বিলিয়ন মানে ১ হাজার কোটি ডলার সম্পদের মালিক এমন ধনীর সংখ্যা ছিল মাত্র ২।

সূত্র: বিবিসি, দ্য গার্ডিয়ান, ওয়েলথএক্স ও ফোর্বস।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন