যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টির ছায়া অভিবাসনমন্ত্রী স্টিফেন কিননকের লিখিত এক প্রশ্নের জবাবে যুক্তরাজ্য সরকার গোল্ডেন ভিসা নেওয়া ১০ রুশ নাগরিকদের ওপর নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি প্রকাশ করেছে।

দেশটির কনিষ্ঠ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কেভিন ফস্টার বলেন, নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা ১০ রুশ নাগরিকের মধ্যে সাতজন আগেই প্রাথমিক ছুটি পেয়েছেন অথবা ২০১৪ সালের পর ওই রুটের মাধ্যমে আরও ছুটি পেয়েছেন।

তবে লেবার অ্যান্ড স্পটলাইট করাপশন নামের একটি গোষ্ঠীর দাবি সত্ত্বেও সরকার ভিসাপ্রাপ্ত সেসব ব্যক্তির নাম প্রকাশে অনিচ্ছা প্রকাশ করেছে।

গোল্ডেন ভিসা স্কিম ২০ লাখ ইউরোর বিনিয়োগ তহবিল। যুক্তরাজ্যের ব্যাংক হিসাব সুবিধাসহ বসবাসের আবেদন করার জন্য অনুমতি দিয়ে থাকে।

২০১৪ সালে যুক্তরাজ্যের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন বলেছিলেন, রাশিয়াকে অবশ্যই কূটনীতির পথে উত্তেজনা নিরসনের পথ বেছে নিতে হবে, তা না হলে বিচ্ছিন্নতা ও কঠোর নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়তে হবে। সর্বশেষ তথ্যমতে, পুতিন জমানার সমর্থক কর্মকর্তাদের জন্য যুক্তরাজ্য সরকার এখনো গোল্ডেন ভিসাব্যবস্থা চালু রেখেছে।

স্পটলাইট করাপশনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালে গোল্ডেন ভিসা স্কিমের ওপর সরকার একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল। সম্প্রতি প্রকাশিত তথ্যের কারণে বিষয়টি আরও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। তবে একজন মন্ত্রী গত মাসে সেই প্রতিবেদন প্রকাশ করার প্রতিশ্রুতি দিলেও তা এখনো প্রকাশিত হয়নি।

গ্রুপটির নির্বাহী পরিচালক সোসান হাউলি বলেন, ২০১৪ সালে ইউক্রেনে রুশ আগ্রাসনের পরও যুক্তরাজ্যে রাশিয়ার অর্থ আসার অভিযোগের বিষয়ে সরকারের মধ্যে যে চরম আত্মতুষ্টি ছিল, এটা তার জোরালো প্রমাণ। অনেকে তা–ই মনে করেন, গোল্ডেন ভিসাব্যবস্থা কার্যত রুশ ধনীদের জন্য পৃষ্ঠপোষকতা।

যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেন, ‘আমরা বিষয়টি স্পষ্ট করে দিয়েছি, অভিবাসনব্যবস্থার কোনোরকম অপব্যবহার আমরা সহ্য করব না। আমরা ইতিমধ্যে রুশ বিনিয়োগকারীদের জন্য টিয়ার-১ ভিসা বন্ধ করে দিয়েছি। আরা যাঁরা অবৈধভাবে টাকা বানিয়েছেন, তাঁরা যেন যুক্তরাজ্যে প্রবেশ করতে না পারেন, সেই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন