বিজ্ঞাপন

২০১৯ সালের অক্টোবরে গেটস ও এপস্টেইনের মধ্যকার সম্পর্ক যখন ব্যাপকভাবে জনসাধারণের চোখে পড়া শুরু করে, তীব্র অসন্তুষ্ট হন মেলিন্ডা। তিনি বিবাহবিচ্ছেদের আইনজীবীদের নিয়োগ করেন। সেই থেকে শুরু যার আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি হলো এ বছর।

এ মাসের শুরুতে ২৭ বছরের সম্পর্কের ইতি টেনেছেন বিল গেটস ও মেলিন্ডা গেটস। তাঁদের বিচ্ছেদের কী কারণ, সে বিষয়ে দুজনের মুখ পুরো বন্ধ থাকলেও হুমড়ি খেয়ে পড়েছে সারা বিশ্বের গণমাধ্যম। কারণ, তাঁদের শুরুটা ছিল একদম রোমান্টিক গল্পের মতো। বিল গেটস ও মেলিন্ডার সম্পর্কের শুরুটা ছিল পেশাভিত্তিক। গ্র্যাজুয়েশন শেষ করে ১৯৮৭ সালে প্রোডাক্ট ম্যানেজার হিসেবে মাইক্রোসফটে যোগ দিয়েছিলেন মেলিন্ডা। ওই বছরই প্রতিষ্ঠানের একটি আনুষ্ঠানিক নৈশভোজে যোগ দিয়েছিলেন তাঁরা। এ ঘটনা ঘটেছিল যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে। এরপর দুজনের সামনে এগিয়ে যাওয়া। শুরু হয় তাঁদের তুমুল প্রেম। প্রেম শুরুর সাত বছর পর ১৯৯৪ সালে তাঁরা বিয়ে করেন। এরপর সবকিছুই ভালো চলছিল। তবে ২০০৬ সালে বিতর্ক ওঠে। মাইক্রোসফটের একটি বৈঠকে এক নারী কর্মীর প্রেজেন্টেশনের সময় উপস্থিত ছিলেন বিল গেটস। বৈঠক শেষে ওই কর্মীকে তিনি বার্তা পাঠান ডিনারের। এ রকম নানা ধরনের ছোট ছোট ঘটনায় তিক্ততা বাড়ে দুজনের সম্পর্কে।

সর্বশেষ জানা যায়, ২০২০ মাইক্রোসফটের বোর্ড থেকে সরে যাওয়ার পেছনেও একটি ঘটনা রয়েছে। মাইক্রোসফটের এক কর্মীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন বিল গেটস। তা–ও ২০০০ সালের দিকে। ২০১৯ সালে সেই ঘটনায় প্রতিষ্ঠাতার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছিল মাইক্রোসফট করপোরেশন। তার জেরেই আন্তর্জাতিক এই সংস্থার বোর্ড থেকে সরে দাঁড়াতে হয় বিল গেটসকে।

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন