default-image

বৈদ্যুতিক গাড়ি তৈরির দৌড়ে এবার নামল চীনা মোবাইল ফোন নির্মাতা কোম্পানি শাওমি। আগামী ১০ বছরে এই খাতে এক হাজার কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে তারা। গতকাল মঙ্গলবার এই প্রযুক্তি জায়ান্ট জানায়, তাদের লক্ষ্য গ্রাহকের সামনে স্মার্ট ও মানসম্মত গাড়ি তুলে ধরা। বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।
বৈশ্বিক বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান ক্যানালিসের তথ্য অনুযায়ী বিশ্ববাজারে স্মার্টফোন তৈরির ক্ষেত্রে অ্যাপল ও স্যামসাংয়ের পরেই রয়েছে শাওমির অবস্থান। এবার ব্যাপক প্রতিযোগিতামূলক বৈদ্যুতিক গাড়ির বাজারে প্রবেশ করতে যাচ্ছে তারা। এখানেও প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে অ্যাপল ও হুয়াওয়েকে পাচ্ছে তারা।

প্রাথমিকভাবে দেড় শ কোটি ডলার বিনিয়োগ করে সম্পূর্ণ মালিকানাধীন সহায়ক সংস্থা স্থাপন করবে শাওমি। এই দায়িত্বের প্রধান হবেন শাওমির প্রধান নির্বাহী লই জুন। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘আমাদের সব অংশীদারের মধ্যে বহু দফায় আলোচনার পরে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এটি আমার কোম্পানির জন্য বিশাল একটি উদ্যোগ।’

বিজ্ঞাপন

তবে সাশ্রয়ী মডেলের গাড়ি, নাকি বিলাসবহুল গাড়ি তৈরি করবে, সে সম্পর্কে কোনো ইঙ্গিত দেয়নি শাওমি। বর্তমানে চীনে কয়েক শ বৈদ্যুতিক গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান আছে। বেশ কিছু প্রযুক্তি জায়ান্টও সম্প্রতি এই উদ্যোগে নেমেছে। গত জানুয়ারিতে বিদ্যুৎ–চালিত স্মার্টগাড়ি বানাতে গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান গিলির সঙ্গে জোট বেঁধেছে বাইদু। চীনের বৃহত্তম গাড়ি সংস্থা সাইক (এসএআইসি) মোটরের সঙ্গে মিলিত হয়ে নতুন ব্র্যান্ডের বৈদ্যুতিক গাড়ি এনেছে চীনা প্রযুক্তি জায়ান্ট আলিবাবাও। সম্প্রতি গিলি উদ্বোধনও করেছে তাদের প্রিমিয়াম বৈদ্যুতিক গাড়ি।

গবেষণা সংস্থা এসঅ্যান্ডপি বলছে, ২০২৫ সাল নাগাদ চীনে নতুন গাড়ি বিক্রির ২০ শতাংশই দখল করে নেবে বৈদ্যুতিক গাড়ি। বিশ্বের সবচেয়ে বড় বৈদ্যুতিক গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হলো মার্কিন কোম্পানি টেসলা। তবে বৈদ্যুতিক গাড়ির সবচেয়ে বড় বাজার চীনে। বৈশ্বিক বিক্রির প্রায় অর্ধেকই হয় এখানে।

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন