default-image

হাজার হাজার কোটি রুপির বকেয়া পরিশোধ না করায় টেলিকম কোম্পানিগুলোকে তীব্র ভর্ৎসনা করেছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। গতকাল শনিবার এনডিটিভি অনলাইনের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এর আগে সমস্ত বকেয়া তিন মাসের মধ্যে মেটানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন দেশটির সর্বোচ্চ আদালত। তবে সেই নির্দেশ কেন এখনো পরিপালন করা হয়নি, সে বিষয়ে জানতে টেলিকম কোম্পানিগুলোর প্রধানদের তলব করেছেন আদালত।

আগামী ১৭ মার্চের মধ্যে ভারতী এয়ারটেল, ভোডাফোন, এমটিএনএল, বিএসএনএল, রিলায়েন্স কমিউনিকেশনস, টাটা টেলিকমিউনিকেশন ও অন্যান্য টেলিকম কোম্পানির কর্তাদের জবাব দিতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। ওই তারিখের আগেই বকেয়া আনুমানিক ১ লাখ ৪৭ হাজার কোটি রুপি পরিশোধ করতে বলা হয়েছে কোম্পানিগুলোকে।

পাওনা আদায় করতে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না নেওয়ায় কেন্দ্রীয় সরকারকেও তিরস্কার করেছেন সুপ্রিম কোর্ট।

গত বছরের অক্টোবরে ভারতী এয়ারটেল, রিলায়েন্স কমিউনিকেশন ও ভোডাফোন আইডিয়ার কাছ থেকে ১ লাখ ৪৭ হাজার কোটি রুপি বকেয়া আদায়ে আদেশ দিয়েছিলেন ভারতের সর্বোচ্চ আদালত। ওই আদেশ পুনর্বিবেচনা করে আবেদন করলে গত জানুয়ারিতে তা খারিজ হয়। এই বকেয়া মেটানোর শেষ তারিখ ছিল গত ২৩ জানুয়ারি। সেই সময় আরও পিছিয়ে দেওয়ার আবেদন করে টেলিকম কোম্পানিগুলো।

বার্তা সংস্থা পিটিআইয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টের আদেশের পর টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় ভারতী এয়ারটেল, ভোডাফোনের মতো কোম্পানিগুলোকে বকেয়া তাৎক্ষণিকভাবে পরিশোধের নির্দেশ জারি করে।

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে এয়ারটেল জানিয়েছে, তারা ২০ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ১০ হাজার কোটি রুপি পরিশোধ করবে। বাকিটা আগামী ১৭ মার্চের আগেই পরিশোধ করে দেবে।

লাইসেন্স ফি ও স্পেকট্রাম ব্যবহার বাবদ এয়ারটেলের বকেয়া ৩৫ হাজার ৫৮৬ কোটি রুপি।

টেলিকম মন্ত্রণায়ের আদেশের বিষয়ে এখনো কোনো জবাব দেয়নি ভোডাফোন। গত মাসে কোম্পানিটির চেয়ারম্যান কুমার মঙ্গালাম বিরলা জানান, বকেয়া ৫৩ হাজার কোটি রুপি পরিশোধ করতে হলে কোম্পানিটিকে ভারতে ব্যবসা গুটিয়ে চলে যেতে হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন