default-image

কোভিডের মধ্যে সারা বিশ্বেই অনলাইন লেনদেন বেড়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মানতে গিয়ে মানুষ ঘর থেকে বেরোনো কমিয়ে দিয়েছিল, যার জেরে কেনাকাটা করার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে ডিজিটাল লেনদেন। আগামী কয়েক বছরেও এই ধারা বজায় থাকবে বলে ধারণা করছেন বিশ্লেষকেরা। এই প্রক্রিয়ায় ২০২৫ সালের মধ্যে ভারতে মোট লেনদেনের ৭১ দশমিক ৭ শতাংশই হবে ডিজিটাল লেনদেন। এসিআই ওয়ার্ল্ডওয়াইডের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এসিআই ওয়ার্ল্ডওয়াইড বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে লেনদেন পরিষেবা দিয়ে থাকে। তাদের প্রতিবেদন অনুসারে, ডিজিটাল লেনদেনকে জীবনের অঙ্গ করে তোলার ক্ষেত্রে অন্যান্য দেশের চেয়ে অনেকটাই এগিয়ে আছে ভারত। এ ক্ষেত্রে গত বছর চীনকেও পেছনে ফেলেছে তারা। ওই সময়ে ভারতে যেখানে ২ হাজার ৫৫০ কোটি ডিজিটাল লেনদেন (রিয়েল টাইম পেমেন্ট) হয়েছে, চীনে সেই সংখ্যা ১ হাজার ৫৭০ কোটি। তারপরে আছে যথাক্রমে দক্ষিণ কোরিয়া, থাইল্যান্ড ও ব্রিটেন। ইকোনমিক টাইমস–এর এক প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

বিজ্ঞাপন

ভারতে ডিজিটাল লেনদেনে বরাবরই জোর দেওয়ার কথা বলে এসেছে মোদি সরকার। এমনকি নোট বাতিলের অন্যতম কারণ হিসেবেও এই লেনদেনকে তুলে ধরেছিল তারা। এসিআইয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট কৌশিক রায়ের মতে, সরকার, বিভিন্ন নিয়ন্ত্রক, ব্যাংক ও আর্থিক পরিষেবার ক্ষেত্রে প্রযুক্তি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর সমন্বয়ই এ ক্ষেত্রে ভারতকে অনেকটা এগোতে সাহায্য করেছে।

এসিআইয়ের মতে, যেসব দেশে নগদের প্রচলন বেশি ছিল, সেখানেও প্রায় একই ধারা দেখা গেছে। যেমন ব্রাজিল, মেক্সিকো, মালয়েশিয়ার মতো দেশে নগদ লেনদেনে মানুষ বেশি স্বচ্ছন্দ। কিন্তু সেখানেই সবচেয়ে দ্রুত হারে মোবাইল ওয়ালেটের প্রচলন বেড়েছে গত কয়েক বছরে।

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন