এর আগে পশ্চিমা দেশগুলো নিষেধাজ্ঞার কারণে রাশিয়া ও বেলারুশের বেশ কিছু আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে অর্থ লেনদেন বন্ধের ঘোষণা দিয়েছিলএয়ারবিএনবি।
আরটি জানিয়েছে, নতুন স্থগিতাদেশের আগে ইতিমধ্যে অনেকে আবাসন/আসন সংরক্ষণের জন্য এআরবিএনবিতে টাকা জমা দিয়েছেন। কিন্তু তাঁদের এই টাকা সরাসরি ফেরত না দিয়ে তা বোনাসে রূপান্তরিত করবে কোম্পানিটি। তবে গ্রাহকেরা এই বোনাস কবে ও কীভাবে ব্যবহার করতে পারবেন, তা এখনো স্পষ্ট করেনি কোম্পানিটি।

এদিকে এআরবিএনবি ছাড়া বিশ্বব্যাপী ভ্রমণ পরিষেবা প্রদানকারী বুকিং ডটকমও গত মাস থেকে রাশিয়া ও বেলারুশে তাদের কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে। ফলে দেশ দুটিতে থাকা বুকিং ডটকমের হোটেল, গেস্টহাউস ও প্রদর্শনীকেন্দ্রগুলোতে পর্যটকেরা যেতে পারবেন না।

২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত মার্কিন কোম্পানি এয়ারবিএনবি অনলাইনে মার্কেটপ্লেস পরিচালনা করে থাকে। তাদের মাধ্যমে পর্যটকেরা বিভিন্ন পছন্দের স্থানে ছুটি কাটানোর জন্য আবাসন ও অন্যান্য পর্যটন সুবিধা নিতে পারেন। ওয়েবসাইট ও মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে কার্যক্রম চালানো এআরবিএনবির নিজস্ব আবাসনের ব্যবস্থা নেই; বরং প্রতিটি সংরক্ষণ থেকে তারা কমিশন পেয়ে মুনাফা আয় করে থাকে।

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন