বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সারা বিশ্বেই এখন চলছে সরবরাহ সংকট। মূল্যস্ফীতিও চড়া। তা সত্ত্বেও মার্কিন অর্থনীতি বেশ ভালো অবস্থানে আছে। গত বসন্তে ক্রেতারা যে হারে ব্যয় করেছেন, এখন অতটা করছেন না। তখন তাঁদের হাতে প্রণোদনার টাকা ছিল। এখন তা না থাকায় যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ অতটা ব্যয় না না করলেও টুকটাক খরচ ঠিকই করে যাচ্ছেন।
সে কারণেই ব্যবসায়ী ও ভোক্তারা আশাবাদী, ভোক্তারা আসন্ন বড়দিনেও ব্যয় করবেন। এর সঙ্গে বেড়েছে মজুরি, অনেক কর্ম খালিও আছে, সে কারণে মার্কিন নাগরিকদের হাতে খরচ করার মতো টাকা থাকবে বলেই ধারণা। অর্থনীতিবিদেরা মনে করছেন, করোনাভাইরাসের ডেলটা ভেরিয়েন্টের বিস্তার অনেকটাই থেমেছে, হোটেল–রেস্তোরাঁয় মানুষের যাতায়াত বেড়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল রিটেইল ফেডারেশনের তথ্যানুসারে, চলতি বছরের নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাসে দেশটির খুচরা বিক্রির প্রবৃদ্ধি হবে যথাক্রমে ৮ দশমিক ৫ ও ১০ দশমিক ৫ শতাংশ। ফলে, এবার বিক্রির পরিমাণ দাঁড়াবে রেকর্ড ৮৫৯ বিলিয়ন ডলার। তবে এই পরিসংখ্যানের মধ্যে গাড়ি, গ্যাস ও রেস্তোরাঁয় বিক্রির পরিসংখ্যান অন্তর্ভুক্ত নয়।

বাড়তি দাম সত্ত্বেও ক্রেতাদের এই ক্রয়ের প্রবণতা সম্পর্কে বিশ্লেষকদের মত, কম দামি পণ্য কেনার সুযোগ কম থাকার কারণে মানুষ বেশি দাম দিয়ে হলেও এসব পণ্য কিনছে। বিষয়টি হলো ওয়াশিং মেশিন নষ্ট হয়ে গেলে বেশি দাম দিয়ে হলেও ক্রেতাকে তা কিনতে হবে, তা না হলে তো চলবে না।

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন