বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শিল্পোৎপাদন হ্রাস

এদিকে টানা ছয় মাস যুক্তরাজ্যের বাণিজ্যিক উৎপাদন কমছে। এক জরিপে জানা গেছে, সরবরাহ ব্যবস্থায় সৃষ্ট সংকট, জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি ও কর্মী সংকটের কারণে এ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। খবর দ্য গার্ডিয়ান

আর্থিক বিষয়সংক্রান্ত জরিপ প্রতিষ্ঠান বিডিও জানিয়েছে, চলতি বছরের মার্চে সর্বশেষ জাতীয় লকডাউনের পর থেকে ব্যবসায়িক উৎপাদনে ভাটা শুরু হয়। উৎপাদন পরিমাপের একক সেপ্টেম্বরে ছিল ১০৫ দশমিক ২৩ পয়েন্ট, যা অক্টোবরে নেমে হয়েছে ১০৩ দশমিক ৩৫ পয়েন্টে।

লকডাউন শেষ হওয়ার পর মহামারি সৃষ্ট ক্ষতি কাটাতে উঠেপড়ে লেগে যায় ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলো। বাজারে তখন চাহিদাও বাড়তে শুরু করে। কিন্তু সরবরাহ ব্যবস্থায় সংকটের কারণে আশানুরূপ সাফল্য পাওয়া যায়নি। বাজারের চাহিদা বৃদ্ধির পূর্ণ সুযোগ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলো নিতে পারেনি।

অন্যদিকে বিশ্ববাজারে বেড়েছে জ্বালানির দাম। বেড়েছে উৎপাদন খরচ। তার সঙ্গে আছে কাঁচামালের সংকট—এসব কারণে ব্যবসায়িক উৎপাদনের গতি কমে গেছে।

বিডিওর অংশীদার কেলি ক্রসওয়েট দ্য গার্ডিয়ানকে বলেন, ব্রিটেনের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলো বেশ কঠিন সময় পার করছে। একে তো মূল্যস্ফীতি বেড়েছে, অন্যদিকে কর্মী সংকট। সেদিক থেকে বিবেচনা করলে ২০২২ সাল তাদের জন্য খুবই কঠিন বছর হতে পারে। বিশেষ করে তাঁদের জন্য, যাঁরা দীর্ঘমেয়াদি সমস্যার তুলনায় স্বল্পমেয়াদি সমস্যা সমাধানে বেশি জোর দিয়েছেন।

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন