বছরের শুরুতে আর্থিক পরামর্শদাতা প্রতিষ্ঠান ওয়েডবুশ বলেছিল আগামী বছরের শেষ নাগাদ ২ ট্রিলিয়ন ডলারের মাইলফলক ছোঁবে প্রযুক্তি জায়ান্ট অ্যাপল। তবে এখন কোম্পানির গতি ভিন্ন কথা বলছে। গত সপ্তাহে পুঁজিবাজারে ৫ শতাংশ দর বেড়েছে মার্কিন কোম্পানিটির। এই ঊর্ধ্বগতি অব্যাহত থাকলে ২ ট্রিলিয়ন হতে আগামী বছর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে না–ও হতে পারে তাদের। (১ ট্রিলিয়ন=১ লাখ কোটি)

৯ বছর আগে অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী হন টিম কুক। প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবসের কাছ থেকে দায়িত্ব পান তিনি। ৪৪ বছর আগে এই কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন জবস। তিনি যখন মারা যান, তখন অ্যাপলের বাজারমূল্য ছিল ৩৫০ বিলিয়ন (৩৫ হাজার কোটি) ডলার। ২০১৮ সালের জুলাইতে বিশ্বের প্রথম কোম্পানি হিসেবে এক ট্রিলিয়ন ডলারের মাইলফলক স্পর্শ করে অ্যাপল। দুই বছরের মাথায় ২০২০ সালের জুনে দেড় ট্রিলিয়ন ডলারের হয়ে যায় অ্যাপল। এবার ২ ট্রিলিয়নের মাইলফলক খুব কাছেই মনে হচ্ছে কোম্পানিটির জন্য। করোনার কারণে ইন্টারনেটের প্রয়োজন বেড়েছে মানুষের। অনলাইনে হচ্ছে পাঠদান, অফিস, সেমিনার মিটিং। ব্যাপক এ চাহিদায় পোয়াবারো টেক কোম্পানিগুলোর। অ্যাপল, ফেসবুক আমাজনের প্রতিষ্ঠানগুলোর মুনাফা বাড়ছে ব্যাপক হারে। তবে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি অ্যাপল।

অ্যাপলের শেয়ারের দাম বাড়ায় ৫৯ বছর বয়সী টিম কুক নিজেও ঢুকে পড়েছেন বিশ্বের শত কোটিপতির তালিকায়। কুকের কাছে অ্যাপলের সরাসরি ৮ লাখ ৪৭ হাজার ৯৬৯টি শেয়ার রয়েছে। এ ছাড়া গত বছর বেতন প্যাকেজের অংশ হিসেবে সাড়ে ১২ কোটি ডলারের বেশি মূল্যের বাড়ি নিয়েছেন তিনি। ব্লুমবার্গ বিলিয়নিয়ারস সূচক, তার বিলিয়নিয়ারের স্ট্যাটাস, তার মালিকানাধীন শেয়ার এবং অ্যাপলের মাধ্যমে তার যে ক্ষতিপূরণ প্রদান করা হয়েছে, এর ভিত্তিতে করেছে।

বিগত দশকে আইফোনের মতো কোনো ‘গ্রাউন্ড ব্রেকিং’ পণ্য আনেনি অ্যাপল। কুক অবশ্য নতুন নতুন কিছু প্রযুক্তি নিয়ে ভাবছেন। দেখা যাক, সামনে কী নিয়ে আসে অ্যাপল।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0