বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

সাহারা বনাম এসইবিআই

২০০৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর প্রথম সাহারা প্রাইম সিটি (সাহারা গ্রুপের একটি কোম্পানি) আইপিওর জন্য এসইবিআইয়ের কাছে ডিআরএইচপি জমা দেয়। ডিআরএইচপি বিশ্লেষণ করার সময়, এসইবিআই সাহারা গ্রুপের দুটি সংস্থার (সাহারা ইন্ডিয়া রিয়েল এস্টেট করপোরেশন ও সাহারা হাউজিং ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন) তহবিল সংগ্রহের প্রক্রিয়ায় কিছু ত্রুটি শনাক্ত করে। তারা দেখতে পায়, ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমতি ছাড়াই দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কাছ থেকে অবৈধভাবে আমানত সংগ্রহ করে নিজেদের সম্পদ গড়ে তুলেছে সাহারা।

এর মধ্যে এসইবিআই অভিযোগ পায়, সাহারা ইন্ডিয়া রিয়েল এস্টেট করপোরেশন ও সাহারা হাউজিং ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন ঐচ্ছিক রূপান্তরযোগ্য ডিবেঞ্চার (ওএফসিডি) প্রদান করছে এবং বেআইনিভাবে তহবিল সংগ্রহ করছে। এসইবিআইয়ের সন্দেহ সঠিক প্রমাণিত হয়। এসইবিআই এই দুটি কোম্পানির ওপর তদন্ত শুরু করে এবং তাদের তহবিল সংগ্রহের পদ্ধতি সম্পর্কে সাহারা গ্রুপের কাছে ব্যাখ্যা চায়। তদন্তে এসইবিআই জানতে পারে, ইতিমধ্যে ওই ওএফসিডির মাধ্যমে প্রায় ৩ কোটি বিনিয়োগকারী থেকে ২৪ হাজার কোটি রুপি তুলে নিয়েছে সাহারার অধীনে থাকা ওই দুই কোম্পানি। বিনিয়োগকারীদের কোটি কোটি রুপি ফিরিয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে এসইবিআই ও সাহারার মধ্যে আইনি লড়াই শুরু হয়।

default-image

সাহারা দাবি করে, এই বন্ডগুলো হাইব্রিড পণ্য, যা এসইবিআইয়ের নিয়ন্ত্রণে নয়, করপোরেটবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে, যেখান থেকে সাহারা এর দুটি কোম্পানির অনুমতি নিয়েছে। তবে এসইবিআই সাহারার ওই ব্যাখ্যা আমলে না নিয়ে দুটি কোম্পানিকে ওএফসিডির মাধ্যমে অর্থ তোলা বন্ধ করতে এবং ১৫ শতাংশ সুদে বিনিয়োগকারীদের টাকা ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেয়। এসইবিআইয়ের আদেশকে চ্যালেঞ্জ করে সাহারা প্রথমে এলাহাবাদ হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়। ২০১০ সালের ডিসেম্বরে এলাহাবাদ হাইকোর্ট এসইবিআইয়ের এ বিষয়ের কার্যক্রমকে সীমাবদ্ধ করে। তবে এর মাত্র পাঁচ মাস পরে ২০১১ সালের এপ্রিলে এলাহাবাদ হাইকোর্ট উল্লিখিত নিষেধাজ্ঞা বাতিল করে। মামলাটি অবশেষে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে আসে। ২০১২ সালে সুপ্রিম কোর্ট রায় দেন, সাহারা গোষ্ঠীর কোম্পানিগুলো থেকে বেআইনিভাবে ২৬ হাজার কোটি রুপি (সুদ যোগ হওয়ার পর) তুলেছে। লাখ লাখ মানুষ ব্যাংকে টাকা জমা না রেখে সাহারাকে টাকা দিয়েছেন। সাহারা তাঁদের টাকা ফেরত দিতে পারেনি। সুপ্রিম কোর্ট সাহারার ওই দুটি কোম্পানির ওএফডিআই হোল্ডারদের টাকা সুদের সঙ্গে তিন মাসের মধ্যে এসইবিআইতে জমা দিতে বলেন। সেই সঙ্গে এসইবিআইয়ের কাছে ওএফসিডি ধারকদের সমস্ত বিবরণ জমা দিতেও বলা হয়, যাতে এসইবিআই নিশ্চিত করতে পারে যে অর্থ বিনিয়োগকারীদের কাছে পৌঁছেছে। ২০১৩ সালের মধ্যে সাহারা ১২৭টি ট্রাকে ওএফডিআই হোল্ডারদের বিশদ বিবরণ এসইবিআই অফিসে পাঠায়। তবে এসইবিআই দ্বিতীয় ব্যাচের ফাইল প্রত্যাখ্যান করেছিল, কারণ ট্রাকগুলো অফিস সময়ের পরে এসইবিআইয়ের কাছে পৌঁছেছিল। ওই ব্যাচে ২৫ শতাংশ বিনিয়োগকারীর তথ্য ছিল। এসইবিআই বুঝতে পারে যে ফাইলগুলোতে বিনিয়োগকারীদের সম্পর্কে সঠিক এবং সম্পূর্ণ বিবরণ নেই। মামলাটি মুদ্রা পাচার মামলার দিকে মোড় নিতে শুরু করে। এর মধ্যে সাহারা তিন মাসের মধ্যে ১৫ শতাংশ সুদসহ এসইবিআইতে অর্থ জমা দিতে ব্যর্থ হয়।

default-image

সুপ্রিম কোর্ট সাহারা গ্রুপকে তিন কিস্তিতে অর্থ প্রদানের নির্দেশ দিয়েছিলেন। সাহারা প্রথম কিস্তি পরিশোধ করে ৫ হাজার ১২০ কোটি রুপি। আর দাবি করে যে তারা ইতিমধ্যে বিনিয়োগকারীদের অর্থ প্রদান করেছে। এর পেছনে সাহারার যুক্তি ছিল দুই থেকে আড়াই কোটি বিনিয়োগকারীর মধ্যে কেবল ৪ হাজার ৬০০ জন অর্থ দাবি করতে এগিয়ে এসেছিলেন। সাহারা ইন্ডিয়ার যুক্তি ছিল যেহেতু অন্য বিনিয়োগকারীরা দাবি করতে এগিয়ে আসেননি, তার অর্থ দাঁড়ায় তাঁদের অর্থ ইতিমধ্যেই পরিশোধ করা হয়েছে। তবে এটি প্রমাণ করতে বলা হলে কোনো প্রমাণ দিতে পারেনি সাহারা গ্রুপ। এমনকি তারা শোধ করা অর্থের কোনো আয়ের উৎসও উল্লেখ করেনি। এদিকে সুপ্রিম কোর্ট ও এসইবিআই উভয়ই এটিকে অর্থ পাচারের মামলা হিসাবে বিবেচনা করতে শুরু করে। ফলে সম্পদসহ সাহারা ইন্ডিয়ার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ করতে শুরু করে এসইবিআই।

সাহারার প্রতিপত্তি


ঘটনার এ পর্যায়ে এসে সাহারার প্রতিপত্তি কিছুটা তুলে ধরা যাক। ২০০৪ সালে টাইম ম্যাগাজিনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারতীয় রেলওয়ের পর জনশক্তির দিক দিয়ে সাহারা গ্রুপ দেশটির দ্বিতীয় বৃহত্তম প্রতিষ্ঠান। ভারতে তখন সাহারার পাঁচ হাজারের বেশি অফিস ছিল। প্রায় ১৪ লাখ মানুষ ওই কোম্পানিতে চাকরি করতেন।
১৯৭৬ সালে প্রথম সাহারা ফিন্যান্স নামে এক চিট ফান্ড কোম্পানিতে যোগ দেন এই গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা সুব্রত রায়। পরে তিনি কোম্পানিটি কিনে নেন। ১৯৭৮ সালে তিনি কোম্পানির আর্থিক মডেলটি বদলে দেন। নব্বইয়ের দশকে সুব্রত রায় সাহারার সদর দপ্তর তৈরি করেন লক্ষ্ণৌতে। ১৯৯২ সালে সুব্রত রায় ‘রাষ্ট্রীয় সাহারা’ নামে এক সংবাদপত্র চালু করেন। নব্বইয়ের দশকের শেষের দিকে পুনের কাছে শুরু করেন অ্যাম্বি ভ্যালি প্রকল্প। মহারাষ্ট্রের লোনাভালা থেকে ২৩ কিলোমিটার দূরে পাহাড়ের ওপর ৮ হাজার ৯০০ একর জমিতে গড়ে তোলা উপশহর অ্যাম্বি ভ্যালিকে বলা হয় সাহারার মুকুটের সেরা রত্ন। ২০০০ সালে চালু হয় সাহারা টিভি। লন্ডন ও নিউইয়র্কে বেশ কয়েকটি নামকরা হোটেলেরও মালিক তিনি। সাহারা ২০১৪ সালে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের পৃষ্ঠপোষকতাও করে। আবাসন প্রকল্প দিয়ে শুরু হলেও ধীরে ধীরে আর্থিক খাত, অবকাঠামো, সংবাদমাধ্যম, চলচ্চিত্র প্রযোজনা, স্বাস্থ্যসেবা, পণ্য উৎপাদন, ক্রীড়া ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতে সাহারার ব্যবসা ছড়িয়ে পড়ে। তবে ২০০৯ সালে এসে দীর্ঘদিন ধরে বিপুল জনপ্রিয় সাহারা গ্রুপ যে এক ঘোলাটে ব্যবসা করে গেছে, তা প্রকাশ পেতে শুরু করে।

default-image

গ্রেপ্তার হন সুব্রত রায়

আবার ফিরে আসি সাহারা স্ক্যামে। নেটফ্লিক্সের ‘ব্যাড বয় বিলিয়নিয়ারস’ সিরিজে জায়গা নিয়ে রেখেছে সুব্রত রায়ের আলোচিত এই মামলা। এ যেন আসলেই এক সিনেমার গল্প। ২০১৪ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে পুলিশ ভারতের লক্ষ্ণৌ শহর থেকে গ্রেপ্তার করা হয় সাহারা গ্রুপের চেয়ারম্যান সুব্রত রায়কে। মার্চে তাঁকে সাহারা গ্রুপের অন্য দুই পরিচালকের সঙ্গে তিহার কারাগারে পাঠানো হয়। ২০১৫ সালে সাহারার মিউচুয়াল ফান্ড ব্যবসার লাইসেন্স বাতিল করে এসইবিআই। ২০১৬ সালের গোড়ার দিকে সুপ্রিম কোর্ট তাঁকে জামিন দেন। তিনি তাঁর সম্পদের একটি অংশ বিক্রি করার অনুমতিও পান।

এসইবিআই যেভাবে অর্থ আদায় করে যাচ্ছে সাহারা থেকে

জামিনের শুনানিতে সুব্রত রায়ের আইনজীবী কপিল সিবল সেপ্টেম্বরের মধ্যে বকেয়া পরিশোধের জন্য আরও ২০০ কোটি টাকা দেওয়ার প্রস্তাব করেন। সাহারা গ্রুপ দাবি করে, তাদের হেনস্তা করতে ইচ্ছাকৃতভাবে ১৫ শতাংশ অতিরিক্ত সুদ চাপিয়েছে এসইবিআই। সাহারার দাবি, বিনিয়োগকারীদের আগেই পাওনা মিটিয়ে দিয়েছে তারা। তা সত্ত্বেও দুবার করে টাকা চাওয়া হচ্ছে। তবে আদালত প্রস্তাবে সন্তুষ্ট হননি। আদালত সুব্রত রায়কে ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরের মধ্যে আরও ৩০০ কোটি রুপি দেওয়ার নির্দেশ দেন। তা না হলে আবারও গ্রেপ্তার হতে হবে—এমনটা বলা হয়। জামিন হয় সুব্রত রায়ের। ২০১৬ সাল থেকে এখন পর্যন্ত প্যারোলে মুক্ত রয়েছেন ভারতের সাহারা গোষ্ঠীর কর্ণধার সুব্রত রায়। কয়েক কিস্তিতে মোট টাকার একটি বড় অংশ আমানতকারীদের ফেরত দেওয়া হলেও বাকি অর্থ পরিশোধের জন্য ২০১৯ সালের জুলাই পর্যন্ত সময় চায় সাহারা গ্রুপ। কিন্তু তা নাকচ করে দিয়ে ২০১৭ সালে সাহারার অ্যাম্বি ভ্যালি নিলামে তোলার আদেশ দেন আদালত। এখন পর্যন্ত এই কাণ্ডে মোট ১৫ হাজার কোটি টাকা জমা করেছে সাহারা। গত বছর এসইবিআই জানায়, গত নয় বছরে সাহারার দুই সংস্থার দেনা সুদে–আসলে বেড়ে ৬২ হাজার ৬০০ কোটি রুপি হয়েছে। জেলমুক্ত থাকতে হলে সুব্রত রায়কে সেই অর্থ পরিশোধ করতে হবে। যদিও এই ব্যাপারে এখন পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত নেননি সর্বোচ্চ আদালত।

সাহারার বিনিয়োগকারীরা কি অর্থ ফেরত পেয়েছেন

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী গত নয় বছরে সাহারার বিনিয়োগকারীদের প্রায় ১২৯ কোটি রুপি ফেরত দিয়েছে এসইবিআই। এসইবিআই-সাহারা রিফান্ড অ্যাকাউন্টে আমানতের পরিমাণ এখন প্রায় ২৩ হাজার কোটি রুপি। তবে বারবার বিজ্ঞাপন দিয়েও এখন পর্যন্ত তার থেকে খুব সামান্য অর্থই বিনিয়োগকারীদের পরিশোধ করতে পেরেছে এসইবিআই।

তবে এখানে একটি প্রশ্ন এনেছিলেন অনেক বিশ্লেষক, সুব্রত রায় ২০১৪ সালে বিনিয়োগকারীদের পাওনা পরিশোধ করে সহজেই জামিন নিতে পারতেন। তা সত্ত্বেও তিনি কেন দীর্ঘ দুই বছর কারাগারে ছিলেন, তা অবাক করে বিশ্লেষকদের। কারণ, সুব্রত রায়ের ব্যক্তিগত সম্পদ এবং বিনিয়োগকারীদের পাওনার মধ্যে বিশাল ব্যবধান ছিল। ২০১৬ সালের সুব্রত রায়ের আইনজীবী কপিল সিবলও সুপ্রিম কোর্টে তাঁর জামিনের আবেদনের পক্ষে যুক্তি দেখানোর সময় বলেছিলেন, সাহারার মালিক পালিয়ে যাবেন না, কারণ তাঁর প্রচুর সম্পদ রয়েছে। তবে কেন তিনি তা করেননি, তা অজানা বিশ্লেষকদের। উল্লেখ্য, সুব্রত রায়ের সম্পদ ছিল বলেই বিনিয়োগকারীদের তা ফিরে পাওয়ার আশা ছিল। যাঁদের সম্পদ নেই, তাঁদের নিয়েই বিপদ।

ভারতে বেআইনিভাবে বাজার থেকে তোলা অর্থ লগ্নিকারীদের কাছে না ফেরানোর অভিযোগ যাদের বিরুদ্ধে রয়েছে, তাদের মধ্যে অন্যতম হলো সহারা। সাহারার ছিল নানা ডিপোজিট স্কিমের ব্যবসা। সাহারা মাইনর, সাহারা সুপার বা সাহারা এমআইএস—এ ধরনের নানা ডিপোজিট স্কিমের মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ করত সাহারা ইন্ডিয়া ফিন্যান্সিয়াল করপোরেশন। এই ডিপোজিট স্কিমের কোনোটির কিস্তি এক রুপিও ছিল। বিপুল জনসংখ্যার দেশ ভারতে এভাবে অর্থ সংগ্রহের চেয়ে সহজ পথ আর কী হতে পারে। বিষয়টা ছিল অনেকটা বাংলাদেশের ডেসটিনির অর্থ সংগ্রহের মতোই। মিল আছে ইভ্যালি–কাণ্ডের সঙ্গেও। তবে এসইবিআইয়ের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় এই বিশাল প্রতারণা আটকে ফেলা সম্ভব হয়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এ ধরনের ঘটনায় সমস্ত প্রমাণ থাকলেও নানা ধরনের আইনি ফাঁকফোকর ও অর্থের ক্ষমতার কারণে নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। সর্বশেষ বলা যা, এই কেস হলো এমন একটি উদাহরণ—নিয়ন্ত্রক সংস্থা যদি শক্ত হয়, তবে কোনো অপরাধী জয়ী হতে পারে না।

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন