১৪ হাজারের বেশি কর্মী নিয়োগ দেবে যে ব্যাংক

বিজ্ঞাপন
default-image

করোনাভাইরাস বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ার পড় দেশে দেশে শুরু হয় লকডাউন। এরপরই কাজ কমে যাওয়ায় প্রভাব পড়ে প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের ওপর। শুরু হয় বেতন কমানো, কর্মী ছাঁটাই বা ‘কাজ নেই বেতন নেই’ ফর্মুলা। কিন্তু এরই মধ্যে একটি ব্যাংকের দাবি, তারা চলতি অর্থবছরে ১৪ হাজারের বেশি কর্মীকে চাকরি দেবে।


এটি ভারতের স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার (এসবিআই) দাবি। স্বেচ্ছাসেবী অবসর প্রকল্পের (ভিআরএস) কথা চারদিকে চাউর হওয়ার পরই ব্যাংকটি বলেছে, ‘এটি সঠিক তথ্য নয়। আমরা আরও লোক নিয়োগ দেব। সংখ্যাটি ১৪ হাজারের বেশি।’

ভারতের অর্থনীতির গতিবিধ নজরে রাখা সংস্থা সেন্টার ফর মনিটরিং ইন্ডিয়ান ইকোনমি (সিএমআইই) সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে বলেছে, করোনার প্রভাবে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন দুই কোটির বেশি ভারতীয়। তাঁরা সবাই বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বেতনভুক্ত কর্মী। এর মধ্যে জুলাই মাসে দেশটিতে প্রায় ৪৮ লাখ কর্মী কাজ হারিয়েছেন। আগস্টে এসে কাজ হারানো কর্মীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৫০ লাখে। করোনার পর এপ্রিল থেকে আগস্ট—পাঁচ মাসে কাজ হারিয়েছেন ২ কোটি ১০ লাখ মানুষ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ব্যয়সংকোচনের জন্য ভিআরএসের পথে যাচ্ছে এসবিআই—সে কথা অস্বীকার করে ভারতের বৃহত্তম ব্যাংক এসবিআই জানাল, চলতি অর্থবছরে ১৪ হাজারের বেশি লোককে তারা চাকরি দেবে। এসবিআই প্রায় ৩০ হাজার কর্মীকে ব্যয়সংকোচনের জন্য ভিআরএস দিতে চাইছে। মিডিয়ায় এই খবর প্রকাশের পরই এসবিআইয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ১৪ হাজার কর্মী এ বছর নিয়োগ পাবেন।

চলতি বছরের মার্চ মাসে স্টেট ব্যাংক আব ইন্ডিয়াতে কর্মী ছিলেন আড়াই লাখ। এটা অবশ্য আগের বছরের চেয়ে সংখ্যায় ৮ হাজার কম।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে ভারতের কয়েকটি গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ভিআরএসের খসড়া প্রস্তাব তৈরি করা হয়েছে। এখন এসবিআইয়ের বোর্ড সম্মতি দিলেই তা কার্যকর হবে। এই খসড়াটির পোশাকি নাম সেকেন্ড ইনিংস ট্যাপ ভিআরএস-২০২০ (Second Innings Tap VRS-2020)। ব্যাংকটি জানিয়েছে, তারা দেশের নবীনদের কর্মঠ করতে চায়। সেই লক্ষ্যে ন্যাশনাল অ্যাপ্রেন্টিসশিপ স্কিমের (National Apprenticeship Scheme) আওতায় নবীনদের প্রশিক্ষণও দিচ্ছে ব্যাংকটি।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

২০০১ সালে এসবিআই ভিআরএস স্কিম দিয়েছিল। কিন্তু করোনাকালে এসবিআইয়ের প্রস্তাবিত ভিআরএস ভালো চোখে দেখছেন না কর্মীরা। এমন কিছু ঘোষণা হলে তাঁরা আনুষ্ঠানিকভাবে এ ঘোষণার কড়া প্রতিবাদ জানাবেন। সে কারণেই বোধ হয় এসবিআই জানিয়ে দিল, এ বছর ১৪ হাজার কর্মী নিয়োগ করা হবে।

ব্যাংকটির মুখপাত্র বলেন, ‘মূল্যবান কর্মচারীদের প্রতি আমাদের প্রতিশ্রুতি অপরিবর্তিত রয়েছে। আমরা দেশের বেকার যুবকদের দক্ষতা অর্জনের জন্য গভীরভাবে আগ্রহী। আমরাই দেশের একমাত্র ব্যাংক, যারা জাতীয় শিক্ষানবিশ প্রকল্পের আওতায় বোর্ডে শিক্ষানবিশ কর্মকর্তা নিয়োগ দিই। তারা বোর্ডের অন্যদের সঙ্গে কাজ করেন। কাজ শেখেন।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন