default-image

সেবামূলক পেশা নার্সিংয়ে মানুষের সেবা করার পাশাপাশি উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ গড়ার সুযোগ মেলে। দেশে সব জেলা-উপজেলা শহরেই সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল বা ক্লিনিকে প্রতিবছরই নার্সের প্রয়োজন হয়। চাইলে এ পেশায় আসতে পারেন যে কেউ। এ পেশায় যাঁরা আসতে চান, তাঁদের জন্য সুযোগ করে দিয়েছে নার্সিং ও মিডওয়াইফ অধিদপ্তর। প্রতিষ্ঠানটি বর্তমান শিক্ষাবর্ষে দুই বছর মেয়াদি কোর্সে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। সেবামূলক কাজে নিজেকে নিয়োজিত করতে চাইলে ৫ সেপ্টেম্বরে শুরু হচ্ছে অনলাইনে আবেদন।
দেশের পাঁচটি সরকারি নার্সিং কলেজে দুই বছর মেয়াদি (২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষ) পোস্ট বেসিক বিএসসি, নার্সিং ও বিএসসি, পাবলিক হেলথ নার্সিং কোর্সে শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য অনলাইনে আবেদনের প্রক্রিয়া শুরু করছে নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তর।

বিজ্ঞাপন
বিএসসি কলেজে ভর্তি আবেদন ৫ সেপ্টেম্বর শুরু.pdf

৫ সেপ্টেম্বর সকাল ৯টা থেকে শুরু হবে অনলাইনে আবেদন। ১৫ সেপ্টেম্বর রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন করা যাবে।
নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তর প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, পোস্ট বেসিক বিএসসি, নার্সিং ও বিএসসি, পাবলিক হেলথ নার্সিং কোর্সে ৫টি কলেজে মোট আসন ৬২৫টি। কলেজগুলো হলো কলেজ অব নার্সিং, মহাখালী, ঢাকা; ফৌজদারহাট নার্সিং কলেজ, চট্টগ্রাম; বগুড়া নার্সিং কলেজ, বগুড়া; খুলনা নার্সিং কলেজ, খুলনা এবং সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন নার্সিং কলেজ, কাপাসিয়া, গাজীপুর। পাঁচটির কলেজের প্রতিটিতে ১২৫টি করে আসন রয়েছে। ১০০ নম্বরের নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্নপত্রে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

প্রার্থীর যোগ্যতা (বাংলাদেশি প্রার্থী)

বাংলাদেশি প্রার্থীর ক্ষেত্রে এসএসসি বা সমমান/এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় পাস, ডিপ্লোমা ইন নার্সিং সায়েন্স অ্যান্ড মিডওয়াইফারি/ডিপ্লোমা ইন নার্সিং বা সমমান, বাংলাদেশ নার্সিং অ্যান্ড মিডওয়াইফারি কাউন্সিল থেকে রেজিস্ট্রেশনপ্রাপ্ত, সরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত প্রার্থীদের উক্ত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য সিনিয়র স্টাফ নার্স/স্টাফ নার্স/নার্স পদে কমপক্ষে দুই বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে এবং অভিজ্ঞতার সপক্ষে স্থানীয় কর্তৃপক্ষের নিকট থেকে প্রত্যয়নপত্র আছে কি না, তা অনলাইন আবেদনে উল্লেখ করতে হবে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত প্রার্থীদের ক্ষেত্রে চাকরির অভিজ্ঞতা শিথিলযোগ্য।

বিজ্ঞাপন

প্রার্থীর যোগ্যতা (বিদেশি প্রার্থী)

বিদেশি প্রার্থীদের ক্ষেত্রে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট বা সমমান পরীক্ষায় পাস হতে হবে। ডিপ্লোমা ইন নার্সিং পাস, সংশ্লিষ্ট দেশের নার্সিং কাউন্সিল থেকে হালনাগাদ রেজিস্ট্রেশনপ্রাপ্ত, ডিপ্লোমা ইন নার্সিং পাসের পর সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে দুই বছরের চাকরির অভিজ্ঞতাসম্পন্ন হতে হবে। এ ছাড়া চিকিৎসক কর্তৃক স্বাস্থ্য পরীক্ষার সনদপত্র, বিদেশি প্রার্থীদের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট দেশের দূতাবাসের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রাপ্ত বিদেশি শিক্ষার্থীদের আবেদন একটি কমিটির মাধ্যমে মূল্যায়ন করে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন সাপেক্ষে সংশ্লিষ্ট নার্সিং কলেজে ভর্তি করা হবে।

অনলাইনে আবেদন ও ফি জমার নিয়মাবলি
প্রার্থীকে নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের www.dgnm.gov.bd এর মাধ্যমে নির্ধারিত আবেদনপত্র পূরণ করে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে এবং ফি জমা দিতে হবে। শুধু অ্যাপ্লিকেশন আইডিপ্রাপ্ত প্রার্থীরা মোবাইলে আর্থিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বিকাশের মাধ্যমে ভর্তি পরীক্ষার ফি ৫০০ টাকা জমা দেবেন।
নির্ধারিত তারিখ ও সময়ের পর কোনো আবেদনপত্র পূরণ করা যাবে না।

চাকরি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন