বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

২. আপনার ক্যারিয়ারের নানাদিক নিয়ে জানতে চাই।

প্রথমে কাজ শুরু করেছিলাম ডেভেলপমেন্ট সেক্টরে। ভলান্টারি হেলথ সার্ভিসেস সোসাইটিতে সহকারী প্রকাশনা কর্মকর্তা ছিলাম। ইউনিসেফ থেকে স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য প্রকাশিত অনেকগুলো প্রকাশনার দায়িত্বে ছিলাম আমি। পরে চলে আসি কারিতাস বাংলাদেশে জনসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে।

পরবর্তী সময় আসি ব্যাংকিং সেক্টরে। প্রথমে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকে জনসংযোগ কর্মকর্তা, তারপর ঢাকা ব্যাংকে হেড অব পিআর, ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকে জনসংযোগ কর্মকর্তা, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকে হেড অব মার্কেটিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট এবং বর্তমানে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকে হেড অব কমিউনিকেশনস পদে কর্মরত।

৩. কমিউনিকেশন সেক্টরে কোথায় কোথায় কাজের সুযোগ আছে?

গণমাধ্যমের সব শাখায়ই কাজ করার অনেক সুযোগ আছে। প্রিন্ট, টেলিভিশন, রেডিও, অনলাইন, ডিজিটাল মাধ্যমে কাজ করার রয়েছে অনেক সুযোগ। তবে আমার মনে হয় ডিজিটাল মাধ্যমে কাজের সুযোগ বেশি।

৪. তরুণেরা যদি কমিউনিকেশন পেশায় আসতে চায়, তাহলে তাঁদের কোন কোন দিকে দক্ষ হতে হবে?

বেসিক পড়াশোনা শেষ করতে হবে সবার আগে। আর কমিউনিকেশন সম্পর্কে ৩৬০ ডিগ্রি ধারণা থাকতে হবে। আগ্রহ থাকতে হবে নতুন কিছু জানার। সবাই কীভাবে কমিউনিকেট করছে, তা খেয়াল রাখতে হবে। খোঁজ রাখতে হবে কে কী করছে।

৫. এই পেশার ভবিষ্যৎ কেমন?

অনেক ভালো। এমন কোনো প্রতিষ্ঠান নেই, যাঁরা কমিউনিকেট করে না মানুষের সঙ্গে। ব্যবসা করতে হলে, কাজ করতে হলে, মানুষের সঙ্গে কমিউনিকেট করতে হবে। কাজেই ‘স্কাই ইজ দ্য লিমিট’।

৬. আপনি অভিনয়জগতেও কাজ করছেন। সে সম্পর্কে বলুন। কোনটা উপভোগ করেন?

২০১৫ সাল থেকে অভিনয় করছি। শুরু করেছিলাম টেলিভিশন নাটক আর ধারাবাহিক দিয়ে। ২০১৮ থেকে সিনেমা আর বিজ্ঞাপনেও কাজ শুরু করেছি। শোবিজে অভিনয় হলো একটা মায়ার জগৎ। এখানে কেউ একবার এলে আর ফিরে যেতে চায় না। এই জগতের মায়া কাটানো অনেক কঠিন। আর অভিনেতার কখনো মরণ হয় না। কাজের মধ্যে একজন অভিনেতা বেঁচে থাকেন। অভিনয় এখন আমার দ্বিতীয় কাজ। শখ করে অভিনয় করতে এসেছিলাম ২০১৫ সালে, আর এখন তা পরিণত হয়েছে দ্বিতীয় কাজে। অভিনয়কে আমি অনেক উপভোগ করি।

চাকরি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন