default-image

করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকা দেশের সরকারি বা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে সরাসরি ক্লাস শুরু হবে ঈদুল ফিতরের পর আগামী ২৪ মে থেকে। তার এক সপ্তাহ আগে ১৭ মে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আবাসিক হল খুলবে। তবে হলে ওঠার আগেই আবাসিক শিক্ষার্থীদের করোনাভাইরাসের টিকা নিতে হবে। হল খোলার আগেই আবাসিক শিক্ষার্থী, আবাসিক হলের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের টিকার ব্যবস্থা করা হবে। তবে কারও যদি স্বাস্থ্যগত (মেডিকেল কারণে) কারণে টিকা না নেওয়ার মতো অবস্থা থাকে, তাহলে তাঁরা হলে থাকতে পারবেন।

অন্যদিকে, ২৪ মের আগে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় কোনো পরীক্ষা হবে না। তবে অনলাইনে ক্লাস চলবে। এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে মিল রেখে বিসিএসের আবেদন ও পরীক্ষার তারিখ পেছানো হবে। করোনার কারণে বয়স অতিক্রম হয়ে যাওয়া কোনো পরীক্ষার্থী যেন এ ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্ত না হন, এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গতকাল সোমবার দেশের উচ্চশিক্ষা নিয়ে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এসব গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তের কথা জানান। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) এবং উপাচার্যদের সঙ্গে আলোচনা করে এসব সিদ্ধান্ত হয়েছে বলেও জানান তিনি। শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, করোনায় বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় যেসব শিক্ষার্থী বিসিএসের আবেদন করার দিক থেকে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাঁদের বিষয়ে সরকার ব্যবস্থা নেবে।

বিজ্ঞাপন

উল্লেখ্য, ৪১তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ১৯ মার্চ হওয়ার কথা। এ ছাড়া ৪৩তম বিসিএসের আবেদন কার্যক্রম চলছে। ৩১ মার্চ পর্যন্ত এ বিসিএসের আবেদন চলবে। ৪৩তম বিসিএস প্রিলিমিনারি ৬ আগস্ট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা।

default-image

এদিকে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনির ঘোষণার পর ৪৩তম বিসিএসের আবেদনের সময়সীমা বাড়ানোর কথা ভাবছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। তবে ৪০, ৪১ ও ৪২তম বিসিএস পরীক্ষা আগের ঘোষণা অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হবে। পিএসসির চেয়ারম্যান সোহরাব হোসাইন সোমবার রাতে প্রথম আলোকে এই তথ্য জানিয়েছেন।

সোহরাব হোসাইন বলেন, সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করে ৪৩তম বিসিএসের আবেদনের সময়সীমা দুই মাস বাড়িয়ে ৩১ মার্চ করা হয়েছিল। যে উদ্দেশ্যে এই সময়সীমা বাড়ানো হয়েছিল, সেই একই কারণে এখন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনিসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে আলোচনা করে যৌক্তিক সময় বাড়ানো যেতে পারে। তবে অন্য তিন বিসিএসের পরীক্ষা যথাসময়েই হবে। এর মধ্যে ৪০তম বিসিএসের মৌখিক পরীক্ষা চলছে আর ৪১তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা হবে আগামী ১৯ মার্চ। এ ছাড়া ৪২তম বিসিএসের পরীক্ষা হবে এ মাসের ২৬ ফেব্রুয়ারি। ৪২তম বিসিএসে শুধু চিকিৎসক নেওয়া হবে।

default-image

পিএসসির চেয়ারম্যান বলেন, ৪০ ও ৪১তম বিসিএসের কার্যক্রম আগেই শুরু হয়েছিল। আর ৪২তম বিসিএসটি হচ্ছে জরুরি ভিত্তিতে চিকিৎসক নিয়োগের জন্য। সুতরাং এই তিনটি পরীক্ষা পেছানোর যৌক্তিকতা নেই।

জানা গেছে, সেশনজটে আটকা পড়া শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন এর আগে ৪৩তম বিসিএসের আবেদনের সময় বাড়াতে সরকারি কর্ম কমিশনকে (পিএসসি) চিঠি দিয়েছিল। এরপর আবেদনের সময় বাড়ানো হয়েছিল।

কিন্তু এখন যেহেতু ২৪ মের আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো পরীক্ষা হচ্ছে না, তাই আবারও এই সময় বাড়ানোর বিষয়টি সামনে এসেছে। ৪৩তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ৬ আগস্ট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা।

বিজ্ঞাপন
খবর থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন