default-image

গত বছরের ডিসেম্বরের পর বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে করোনাভাইরাস। কোভিডের প্রকোপে এখন পর্যন্ত সাড়ে ১৪ লাখ মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে বিশ্বের অনেক দেশ লকডাউনে যাচ্ছে। অনেক প্রতিষ্ঠান কর্মী ছাঁটাই করেছে। আবার অনেক প্রতিষ্ঠান কর্মী নিয়োগও দিয়েছে। কিছু কিছু কর্মী কাজ হারিয়েছেন। আবার খাদ্যপণ্য বা অনলাইনে সরবরাহকারীদের কাজের চাহিদা ও দায়িত্ব বেড়েছে। তবে কাজ হারানোর সংখ্যাটি বেশি। কারণ, অর্থনৈতিক অবস্থা নাজুক হয়ে পড়েছে অনেক দেশের। তবে এরই মধ্য করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্য প্রথম তিনে থাকা ভারতের একটি কোম্পানি তাদের দেড় লাখ কর্মীর বেতন বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে।    

বিজ্ঞাপন

বিজনেস টুডে ও টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, উইপ্রো তাদের প্রায় দেড় লাখ কর্মীর বেতন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে বেতন বাড়ছে উইপ্রোর কর্মীদের। এর ফলে তথ্যপ্রযুক্তি কোম্পানিটির প্রায় ৮০ শতাংশ কর্মীর বেতন বাড়ছে। এ ছাড়া চলমান করোনা পরিস্থিতিতে যাঁরা ভালো কাজ করেছেন, তাঁদের পদোন্নতিও দিচ্ছে ভারতের অন্যতম প্রধান তথ্যপ্রযুক্তি কোম্পানিটি। তবে উচ্চপদে কর্মরত কর্মীদের বেতন বাড়ছে না। করোনার মধ্য ভালো ব্যবসা হওয়ায় ও কর্মীদের কাজের মূল্যায়নের পরিপ্রেক্ষিতে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে উইপ্রো।

বেঙ্গালুরুভিত্তিক তথ্যপ্রযুক্তির প্রতিষ্ঠান উইপ্রো বি থ্রি এবং তার নিচের স্তরের কর্মীদের গড়ে একক অঙ্কের বেতন বৃদ্ধি করা হচ্ছে। তবে উচ্চপদে কর্মরত কর্মীদের বেতন বৃদ্ধির ব্যাপারে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

বর্তমানে উইপ্রো ভারতের চতুর্থ বৃহত্তম তথ্যপ্রযুক্তি রপ্তানিকারক সংস্থা। এদের কর্মীসংখ্যা ১ লাখ ৮৫ হাজারের বেশি। যাঁরা ভালো কাজ করেছেন, তাঁদের গত বছরের সাপেক্ষে বেতন বৃদ্ধি হবে। বেতন বৃদ্ধি পাওয়া কর্মী দেড় লাখ।

কোভিড মহামারির কারণে উইপ্রো ও অন্যান্য তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা টাটা কনসালট্যান্সি সার্ভিসেস (টিসিএস), ইনফোসিস, এইচসিএলের প্রতিষ্ঠানগুলো এ বছরের শুরুতে বেতন বৃদ্ধি স্থগিত রেখেছিল। এরপর উইপ্রো ১ ডিসেম্বর থেকে বি থ্রি স্তর পর্যন্ত যাঁরা ভালো কাজ করেছেন, তাঁদের পদোন্নতির কথা ঘোষণা দিল।

বিজ্ঞাপন
উইপ্রো তাদের প্রায় দেড় লাখ কর্মীর বেতন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে বেতন বাড়ছে উইপ্রোর কর্মীদের। এর ফলে তথ্যপ্রযুক্তি কোম্পানিটির প্রায় ৮০ শতাংশ কর্মীর বেতন বাড়ছে

উইপ্রো সেপ্টেম্বরে শেষ হওয়া দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে গত বছরের তুলনায় নিট মুনাফা ৩ দশমিক ৪ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৪৬৫ কোটি রুপির বেশি, যেখানে আগের বছর ওই ত্রৈমাসিকে অঙ্কটা ছিল ২ হাজার ৫৫২ কোটি রুপির বেশি।

উইপ্রোর মুখপাত্র বলেছেন, ‘আমাদের কর্মীরা এই চ্যালেঞ্জের কঠিন সময়ে বিরামহীন কাজ করে ব্যবসায়ের ধারাবাহিকতা নিশ্চিত করেছেন। উইপ্রো বিভিন্ন পদক্ষেপের মধ্য দিয়ে মধ্য ও প্রবীণ নেতৃত্বের মধ্যে কাজের সমন্বয় রক্ষার জন্য নানা পদক্ষেপ গ্রহণ অব্যাহত রাখবে।’

default-image

গত অক্টোবরে আয়ের দিক থেকে ইনফোসিস ছিল ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম সফটওয়্যার সংস্থা। এর পরে তারা কর্মীদের উৎসাহের জন্য একটি বিশেষ প্রণোদনা দেয়। এর আগে টিসিএস জানিয়েছিল, তারা ১ অক্টোবর থেকে তাদের কর্মীদের বেতন বৃদ্ধি করবে। ইনফোসিস ঘোষণা করেছিল, তাদের কর্মীদের বেতন বৃদ্ধি হবে আগামী বছরের জানুয়ারি থেকে এবং ডিসেম্বর থেকে পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে বিশেষ প্রণোদনা দেওয়া হবে। ইনফোসিস, টিসিএস ও উইপ্রোর কর্মীদের জন্য বেতন বাড়ানো ও বোনাস দেওয়ার ঘোষণায় কোভিড-১৯–পূর্ববর্তী অবস্থায় ফিরে আসার লক্ষণ বলে মন্তব্য করেছেন সংশ্লিষ্ট খাতের বিশেষজ্ঞরা।

মন্তব্য করুন