default-image

দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ভিত্তিক ক্লাব/ সংগঠনের অংশগ্রহণে ভার্চ্যুয়ালি ৬ ও ৭ নভেম্বর দুদিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হলো ‘মাইডাস ফাইন্যান্সিং লিমিটেড প্রেজেন্টস ক্যাম্পাস ক্লাব সামিট ২০২০ ইন অ্যাসোসিয়েশন উইথ দ্য ডেইলি স্টার’। আয়োজনটির মূল আয়োজক প্রতিষ্ঠান জনপ্রিয় স্কিল ডেভেলপমেন্ট এবং ক্যারিয়ারবিষয়ক তারুণ্য–নির্ভর প্রতিষ্ঠান এক্সিলেন্স বাংলাদেশ।

অংশগ্রহণকারী ক্লাবগুলোর মধ্যে বিপুল উৎসাহ–উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে অনলাইনে হয়ে যাওয়া এ সামিটের উদ্বোধন করেন মাইডাস ফাইন্যান্সিং লিমিটেডের কোম্পানি সেক্রেটারি তানভীর হাসান এবং দ্য ডেইলি স্টারের হেড অব মার্কেটিং তাজদীন হাসান। আয়োজনটি নিয়ে স্বাগত বক্তব্য দেন এক্সিলেন্স বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা বেনজির আবরার।

দুদিনের সামিট কি-নোট প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন দ্য ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম, গ্রে গ্রুপ বাংলাদেশের এমডি ও বাংলাদেশ প্রধান সৈয়দ গাওসুল আজম শাওন ও এসবি টেক ভেঞ্চারসের প্রধান নির্বাহী সোনিয়া বশির কবির। কি–নোট সেশনগুলোতে বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে সংগঠন চর্চা, পারস্পরিক সম্প্রীতিবোধ, ক্যারিয়ারবিষয়ক পরামর্শ এবং সামিটের মূল আলোচনা উপস্থাপন হয়৷ কি–নোট সেশনগুলোতে ফেসবুক পেজে কমেন্ট করে স্ক্রিনে প্রশ্ন করার সুযোগ পান বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাবের সদস্যরা।

বিজ্ঞাপন

দুদিনের সামিটজুড়ে লিডারশিপবিষয়ক আলোচনায় যুক্ত হন রবি-টেন মিনিট স্কুলের সিইও আয়মান সাদিক, জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী এলিটা করিম, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোর হেড অব এক্সটারনাল অ্যাফেয়ার্স শেখ সাবাব আহমেদ, দ্য ডেইলি স্টারের ডিজিটাল মার্কেটিং ম্যানেজার শুভাশীষ রায়। শিক্ষকদের চোখে ক্লাবিং অ্যাক্টিভিটিস কতটা গুরুত্বপূর্ণ, সে বিষয়ক সেশনে যুক্ত হন রাশেদুর রহমান, আরিফ জামান ও শিবলী শাহরিয়ার। পার্টনারশিপ ক্লাবগুলোর জন্য গুরুত্বপূর্ণ এই বিষয়ে যুক্ত হন সামিটের পার্টনার প্রতিষ্ঠান সদাগর.কম, উমাই ফুড অ্যান্ড বেভারেজেস লিমিডেট, এইচবি এভিয়েশন ট্রেনিং সেন্টার, টিএল এক্সপ্রেস কুরিয়ার, ক্যারিয়ার্স হাব বাংলাদেশ, এশেন্সি ও পার্কিং কই–এর কর্মকর্তারা।

সামিটের একটি সেশনের বিষয় ছিল মিডিয়ায় ক্লাব অ্যাক্টিভিটিসের ব্র্যান্ডিং–বিষয়ক, যেখানে দৈনিক প্রথম আলোর হেড অব ডিজিটাল বিজনেস জাবেদ সুলতান পিয়াস, মিশন সেইভ বাংলাদেশের ফাউন্ডার ইমরান কাদির ও দ্য ডেইলি স্টারের হেড অব মার্কেটিং তাজদীন হাসান কথা বলেন। তাঁরা তারুণ্যের সঙ্গে সব সময় থাকবেন বলে জানান, জানান কী প্রক্রিয়ায় তাঁরা পার্টনারশিপ দিয়ে থাকেন।

সামিটের সমাপনী ও রিকগনিশন গিভিং আয়োজনে যুক্ত হন নিজের বলার মতো একটি গল্প ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ইকবাল বাহার ও আয়োজক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা। সেশনটিতে ক্লাবগুলোর দেওয়া পোর্টফোলিওর বিচারে বেস্ট ক্লাব অ্যাওয়ার্ড ২০২০ ঘোষণা করা হয় বুয়েট ক্যারিয়ার ক্লাব, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি, নর্থসাউথ-ইয়েস, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যারিয়ার ক্লাব ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেট অর্গানাইজেশনকে। কোভিড-১৯–এর প্রথম পাঁচ মাসে ক্লাবিং কার্যক্রম সচল রেখে মানবিক ও দায়িত্বশীল কর্মকাণ্ডের জন্য পাঁচটি ক্লাবকে দেওয়া হয় সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার রিকগনিশন ২০২০। ক্লাবগুলো হচ্ছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় রোভার স্কাউট গ্রুপ, বিইউপি বিজনেস অ্যান্ড কমিউনিকেশনস ক্লাব, গণবিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ইউনিভার্সিটি স্কিল ডেভেলপমেন্ট ক্লাব ও ইউল্যাব ডিজিটাল মার্কেটিং ক্লাব।

সামিট নিয়ে এক্সিলেন্স বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা বেনজির আবরার বলেন, ‘আয়োজনটিকে আমরা প্রতিবছর সিগনেচার ইভেন্ট হিসেবে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এক্সিলেন্স বাংলাদেশ সব সময়ই তারুণ্যকে প্রমোট করে, তরুণদের কাজগুলোকে সামনে আনতে চায়। এই ক্লাব সামিট ২০২০ একটা বড় মেসেজ দিয়ে গেল সবাইকে। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা সবার প্রতি।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0