default-image

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের সিনিয়র স্টাফ নার্স পদের লিখিত পরীক্ষা স্থগিত করে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। করোনা সংক্রমণের বিদ্যমান পরিস্তিতি বিবেচনায় চলমান লকডাউন ১৬ মে পর্যন্ত সরকার বাড়ানোয় পিএসসি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পরীক্ষার তারিখ পরে পিএসসির ওয়েবসাইট ও জাতীয় দৈনিকে প্রকাশ করা হবে। আজ মঙ্গলবার পিএসসি এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা বলা হয়েছে।

গত বছরের ১ মার্চে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে সিনিয়র স্টাফ নার্সে পদের সংখ্যা ২ হাজার ৫০০ বলা হয়েছিল। গত ২৮ জানুয়ারি সিনিয়র স্টাফ নার্স পদের এমসিকিউ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ওই দিন বেলা তিনটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত রাজধানীর ২১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ২৮ ফেব্রুয়ারি এমসিকিউয়ের ফল প্রকাশ করে পিএসসি। এরপর গত ১০ এপ্রিল লিখিত পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করে পিএসসি। তবে করোনোভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় এ লিখিত পরীক্ষা স্থগিত করেছিল পিএসসি। সেই পরীক্ষার পুনর্নির্ধারিত সূচি প্রকাশ করে পিএসসি। এমসিকিউ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ১৫ হাজার ২২৮ জন প্রার্থীর লিখিত পরীক্ষা আগামী ৯ মে রোববার অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। করোনার কারণে এবারও পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীরা এরপর মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নেন।

বিজ্ঞাপন
default-image

নির্বাচন প্রক্রিয়া

প্রার্থীদের ১০০ নম্বরের এমসিকিউ (লিখিত) পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হয়েছে। এই পরীক্ষায় মোট ১০০টি প্রশ্ন ছিল। এক ঘণ্টার এই পরীক্ষায় বাংলা, ইংরেজি, সাধারণ জ্ঞান, গণিত ও দৈনন্দিন বিজ্ঞান বিষয়ে প্রশ্ন ছিল। প্রতিটি শুদ্ধ উত্তরের জন্য ১ নম্বর পান প্রার্থীরা। ভুল উত্তরের জন্য ০.৫ নম্বর কাটা গেছে। এমসিকিউ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের লিখিত পরীক্ষা হবে ৪ ঘণ্টার। এরপরই মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের।

বেতন-ভাতা ও সুবিধাদি

লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হলে একজন সিনিয়র স্টাফ নার্স ও মিডওয়াইফ জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ অনুযায়ী দশম গ্রেডের ১৬ হাজার টাকা স্কেলে বেতন ও বিধি অনুযায়ী অন্যান্য ভাতা বা সুবিধা পাবেন।

বিজ্ঞাপন
খবর থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন