বিজ্ঞাপন

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য (শিক্ষা) এ এস এম মাকসুদ কামাল প্রথম আলোকে বলেন, করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে ডিনস কমিটির সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও অধিভুক্ত সাত কলেজের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তন করা হয়েছে। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১ অক্টোবর বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ক’ ইউনিটের পরীক্ষার মধ্য দিয়ে শুরু হবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এবারের ভর্তি পরীক্ষা। এরপর ২ অক্টোবর কলা অনুষদভুক্ত ‘খ’ ইউনিট, ৯ অক্টোবর চারুকলা অনুষদভুক্ত ‘চ’ ইউনিট (বহুনির্বাচনী), ২২ অক্টোবর ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদভুক্ত ‘গ’ ইউনিট ও ২৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে সামাজিকবিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটের পরীক্ষা। ১১ সেপ্টেম্বর থেকে ভর্তি–ইচ্ছুক শিক্ষার্থীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট থেকে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবেন।

এ ছাড়া সাত কলেজের ভর্তি পরীক্ষাও পেছানো হয়েছে। ২৯ অক্টোবর বিজ্ঞান ইউনিটের মধ্য দিয়ে সাত কলেজের ভর্তি পরীক্ষা শুরু হবে৷ এরপর ৩০ অক্টোবর কলা ও সামাজিকবিজ্ঞান ইউনিট এবং ৫ নভেম্বর বাণিজ্য ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
মাকসুদ কামাল জানান, ডিনস কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত হওয়া এ তারিখগুলো অন্য কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার তারিখের সঙ্গে সাংঘর্ষিক হয় কি না কিংবা এসব তারিখে জাতীয় কোনো অনুষ্ঠান আছে কি না, এগুলো দেখে আগামীকাল বুধবার উপাচার্য এগুলোর অনুমোদন দেবেন।

এ নিয়ে তৃতীয় দফায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পেছানো হলো। প্রথম দফায় ঘোষিত তারিখ অনুযায়ী ২১ মে থেকে ৫ জুন পর্যন্ত এ পরীক্ষা আয়োজনের কথা থাকলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে গত ২৯ এপ্রিল তা পরিবর্তন করা হয়। সেদিন ৩১ জুলাই থেকে ১৪ আগস্ট পর্যন্ত পরীক্ষা আয়োজনের সিদ্ধান্ত হয়। আজ সেটিও পরিবর্তন করা হলো।

সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি ইউনিটে এবার মোট ১২০ নম্বরের ভর্তি পরীক্ষা হবে। সেখানে মূল পরীক্ষায় (বহুনির্বাচনী ও লিখিত) ১০০ এবং এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলের ওপর ১০ করে মোট ২০ নম্বর থাকবে৷ ক, খ, গ ও ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় ৬০ নম্বরের বহুনির্বাচনী ও ৪০ নম্বরের লিখিত অংশ থাকবে। উভয় অংশের জন্য ৪৫ মিনিট করে সময় থাকবে। তবে চ ইউনিটের বহুনির্বাচনী পরীক্ষার জন্য ৩০ মিনিট আর লিখিত পরীক্ষার জন্য ৪৫ মিনিট সময় বরাদ্দ থাকবে। দেশের বিভিন্ন বিভাগীয় শহরের কেন্দ্রে নির্ধারিত তারিখে বেলা ১১টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচটি ইউনিটে আবেদন শুরু হয় গত ৮ মার্চ, চলে ৩১ মার্চ পর্যন্ত৷ এবার সব মিলিয়ে ৩ লাখ ২০ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার জন্য আবেদন করেছেন।

সাত কলেজে ভর্তির আবেদন

এদিকে সাত কলেজে ভর্তির আবেদন ১০ জুলাই থেকে শুরু হয়েছে। আগামী ২০ আগস্ট পর্যন্ত সাত কলেজে আবেদন করা যাবে৷ ২০১৫ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত মাধ্যমিক বা সমমান এবং ২০২০ সালের উচ্চমাধ্যমিক বা সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে যাঁরা নির্ধারিত শর্ত পূরণ করতে পারবেন, তাঁরাই সাত কলেজে ভর্তির জন্য আবেদন করার যোগ্যতা অর্জন করবেন।

ন্যূনতম যোগ্যতা হিসেবে বিজ্ঞান ইউনিটের জন্য মাধ্যমিক বা সমমান এবং উচ্চমাধ্যমিক বা সমমান পরীক্ষায় (চতুর্থ বিষয়সহ) প্রাপ্ত জিপিএর যোগফল ন্যূনতম ৭, বাণিজ্য ইউনিটে দুই জিপিএর যোগফল ন্যূনতম ৬ দশমিক ৫ এবং কলা ও সামাজিকবিজ্ঞান ইউনিটে ন্যূনতম ৬ থাকতে হবে।

সাত কলেজে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তির জন্য এবার মোট ১২০ নম্বরের ভর্তি পরীক্ষা দিতে হবে৷ এর ৪০ শতাংশ, অর্থাৎ ৪৮ নম্বর পেলে কোনো শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ বলে বিবেচিত হবেন৷ সাত কলেজের এবারের ভর্তি পরীক্ষার আবেদন ফি ৪৫০ টাকা।

সাত কলেজের ভর্তি পরীক্ষাবিষয়ক সব তথ্য ও নির্দেশনা পাওয়া যাবে (http://7college.du.ac.bd/admission) এই ওয়েবসাইটে।

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন