বিজ্ঞাপন
আমার জানামতে শুধু শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে নয়, অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়েও কোনো প্রশাসনিক কর্মকর্তাকে উপাচার্যের রুটিন দায়িত্ব দেওয়ার নজির নেই।
কামালউদ্দিন আহমেদ, বিদায়ী উপাচার্য

প্রথম আলোর এক প্রশ্নের জবাবে গতকাল বুধবার শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেন, এ নিয়ে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অভিযোগ পাননি। তবে অন্য কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা আপত্তি তুলেছেন। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে শিগগিরই নিয়মিত উপাচার্য নিয়োগ হয়ে যাবে।

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট ৩২২ জন শিক্ষকের মধ্যে অধ্যাপকই আছেন ১০৪ জন। শেখ রেজাউল করিম শিক্ষক নন। তিনি ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে রেজিস্ট্রার হিসেবে যোগ দেন। তার আগে তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে উপ–রেজিস্ট্রার ছিলেন।

বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন এক বিবৃতিতে বলেছে, একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের রুটিন দায়িত্ব দেওয়ার ঘটনা বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষকদের মধ্যে যে ক্ষোভ ও হতাশা তৈরি করেছে, তাতে শিক্ষাঙ্গনের স্বাভাবিক পরিবেশ বিঘ্নিত হওয়া এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের গতি শ্লথ হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ ঘটনা উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে বিশৃঙ্খলার আশঙ্কা তৈরি করেছে। এটি বিশ্ববিদ্যালয় ও শিক্ষক কোনো দিকেরই মর্যাদা সমুন্নত করে না। উপাচার্য ও সহ–উপাচার্য নিয়োগে দীর্ঘসূত্রতার কারণে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে।

শেখ রেজাউল করিম প্রথম আলোকে বলেছেন, সরকার আপৎকালীন তাঁকে যে দায়িত্ব দিয়েছে, সেটিই তিনি পালন করছেন। তিনি কেবল শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন দেওয়ার কাজ করছেন। অন্য কোনো কাজ করছেন না।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদায়ী উপাচার্য কামালউদ্দিন আহমেদ মেয়াদ শেষ হওয়ার অন্তত দুই মাস আগেই শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে তাঁর মেয়াদ শেষ হওয়ার তথ্য জানিয়েছিলেন। এরপর মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে ২৬ জুলাই আবারও উপাচার্য নিয়োগ দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছিলেন। অধ্যাপক কামালউদ্দিন বলেন, তাঁর জানামতে শুধু শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে নয়, অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়েও কোনো প্রশাসনিক কর্মকর্তাকে উপাচার্যের রুটিন দায়িত্ব দেওয়ার নজির নেই।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন জ্যেষ্ঠ শিক্ষককে রুটিন দায়িত্ব দেওয়ার চেষ্টা করেও দিতে পারেনি। ডিনদেরও তালিকা নিয়েছিল মন্ত্রণালয়। কিন্তু সমন্বয় করতে পারেনি।

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, এ নিয়োগ সুন্দর ও শোভনীয় নয়। এটি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসনের পরিপন্থী। অবশ্যই শিক্ষকদের মধ্যে থেকে একজনকে দায়িত্ব দেওয়া উচিত ছিল।

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন