বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গ. চিত্র mএর প্রাণীটি হাইড্রা। চিত্র m (হাইড্রা)–এর বৈশিষ্ট্যগুলো হলো:

১. হাইড্রা দ্বিস্তরী প্রাণী। দেহ অক্টোডার্ম এবং এন্ডোডার্ম নামে দুটি ভ্রূণীয় কোষস্তর গঠিত।
এই দুই স্তরের মধ্যে অকোষীয় মেসোগ্লিয়া রয়েছে।

২. এর দেহে সিলেন্টেরন বা গ্যাসট্রোভাসকুলার নামক দেহগহ্বর আছে। এটি পরিপাক ও সংবহনে অংশ নেয়।

৩. অক্টোডার্ম নামক ভ্রূণীয় কোষস্তরে বৈশিষ্ট্যপূর্ণ নিডোব্লাস্ট কোষ থাকে।

ওপরের বৈশিষ্ট্যগুলো Cnidaria পর্বের প্রাণীদের সঙ্গে হুবহু সামঞ্জস্যপূর্ণ। সুতরাং চিত্র m-এর প্রাণীটি Nidaria পর্বের অন্তর্ভুক্ত

ঘ. চিত্র n-এর প্রাণীটি শামুক। আমাদের দেশে এখনো বাণিজ্যিকভাবে শামুক চাষ করা না হলেও এটি চাষের মাধ্যমে আমরা বিভিন্ন দিক দিয়ে লাভবান হতে পারি। নিচে এ সম্পর্কে আলোচনা করা হলো:

১. শামুকের শক্ত খোলক পুড়িয়ে চুন তৈরি করা হয়, যা পানের সঙ্গে খেতে এবং দালান চুনকামের কাজে ব্যবহার করা হয়।

২. শামুকের খোলককে গ্রামাঞ্চলে চামচ ও চাকুর বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

৩. শামুক চুন অধিক প্রাকৃতিক গুণসম্মত ও ক্যালসিয়ামসমৃদ্ধ, যা বিভিন্ন রোগের ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

৪. শামুকের দেহের কোমল অংশকে বিভিন্ন দেশে খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

৫. শামুকের খোলস থেকে উজ্জ্বল অলংকার, চাবির রিং, বিভিন্ন ধরনের শোপিস ইত্যাদি তৈরি

করা হয়।

৬. বড় বড় মাছ ধরার জন্য বরশির টোপ হিসেবে শামুকের নরম অংশ ব্যবহৃত হয়।

৭. শামুকের খোলসের চুর্ণ হাঁস-মুরগির খাদ্য এবং ভিতরের নরম অংশ মাছের খাদ্য হিসেবে বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করা হচ্ছে। আর এই রপ্তানিকাজে নিয়োজিত থেকে বহু লোক জীবিকা নির্বাহ করেন।

সুতরাং ওপরের আলোচনা থেকে বলা যায়, চিত্র n-এর প্রাণীটি চাষের মাধ্যমে আমরা বিভিন্নভাবে লাভবান হতে পারি।

মোহাম্মদ আক্তার উজ জামান, প্রভাষক
রূপনগর সরকারি মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ঢাকা

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন