ভার্চ্যুয়াল গোলটেবিল বৈঠক

প্রস্তুতি নিয়ে স্কুল খুলতে হবে

বিদ্যালয় পুনরায় যখন খুলবে, তখন সুচিন্তিতভাবে পরিকল্পনা করে প্রস্তুতি নিতে হবে। ক্ষতি পুষিয়ে নিতে দরকার ‘প্রণোদনা প্যাকসিখ

বিজ্ঞাপন
default-image

করোনা সংক্রমণের বিদ্যমান পরিস্থিতিতে এখনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা ঠিক হবে না। কিন্তু পুনরায় যখন খুলবে, তখন সুচিন্তিতভাবে পরিকল্পনা করে প্রস্তুতি নিতে হবে। এ জন্য স্থানীয়ভাবে পরিকল্পনা করা দরকার। আর স্বাস্থ্যবিধি মানাসহ শিক্ষার অন্যান্য ক্ষতি পুষিয়ে নিতে দরকার বিনিয়োগ। এ জন্য সরকারের উচিত শিক্ষাক্ষেত্রেও প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা দিয়ে স্বচ্ছতার ভিত্তিতে সেটি কাজে লাগানো।

প্রথম আলো ও সেভ দ্য চিলড্রেন বাংলাদেশের উদ্যোগে গতকাল বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত ‘কোভিড-১৯ সময়ে শিশুদের নিরাপদে স্কুলে ফেরা: প্রতিবন্ধকতা ও করণীয়’ শীর্ষক ভার্চ্যুয়াল গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা এসব কথা বলেন। বৈঠকে শিক্ষাবিষয়ক সরকারের নীতনির্ধারক, স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ, মনোরোগ বিশেষজ্ঞ, শিক্ষা বিশেষজ্ঞ ও শিক্ষার্থীরা বক্তব্য দেন।

করোনাভাইরাসের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সরকার জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সভাপতি ও বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ সহিদুল্লা বলেন, পুনরায় বিদ্যালয় খোলাও দরকার। কিন্তু এখনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা ঠিক হবে না। কারণ, সবার আগে জীবন। জীবিত থাকলে শিক্ষা হবে, প্রতিষ্ঠিতও হওয়া যাবে। প্রায় সারা পৃথিবীতেই এখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। যেসব দেশ বেশি পরিকল্পনা না করে খুলেছিল, তারা কিন্তু ব্যর্থ হয়েছে। আবার বন্ধ করতে হয়েছে। তাই বাংলাদেশে এখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ আছে, বন্ধ থাক। এখন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে সঠিক পরিকল্পনা অনুযায়ী বিভিন্ন পদক্ষেপ নিতে হবে। সংক্রমণের হার দেখতে হবে। যখন দেখা যাবে বড় ঝুঁকিতে পড়তে হবে না, তখন খোলা যেতে পারে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার পর পুনরায় স্কুল খোলার আগেই নিরাপদ পরিবেশ নিশ্চিতের ওপর গুরুত্বারোপ করেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষাবিষয়ক উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধূরী। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের যেদিন নিরাপদে স্কুলে নেওয়া যাবে, সেদিন উৎসব করা উচিত। এ জন্য শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকদের মধ্যে আস্থা ফেরাতে হবে। খুব সহজ ভাষায় সচেতনতামূলক বার্তা দিতে হবে। দরিদ্র পরিবারের শিক্ষার্থীদের মাথায় রেখে বাস্তবতার নিরিখে প্রস্তুতি নিতে হবে। কারণ, পড়াশোনায় পিছিয়ে পড়া অনেক শিশু বিদ্যালয়ে আসতে চাইবে না। তাদের আনার ব্যবস্থা করতে হবে। আর এসবের জন্য শিক্ষাক্ষেত্রেও ‘প্রণোদনা প্যাকেজ’ প্রয়োজন এবং সেই প্যাকেজ যেন স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির মধ্যে কাজে লাগানো হয়।

শিক্ষার ধারাবাহিকতার জন্য করোনার বন্ধেও শিক্ষার্থীদের টেলিভিশন ও রেডিওর মাধ্যমে ক্লাস প্রচারের তথ্য তুলে ধরেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও সরকারের অতিরিক্ত সচিব মো. ফসিউল্লাহ। তিনি বলেন, বিদ্যালয় এমন সময়ে খোলা হবে না, যখন ঝুঁকি থাকবে। বিদ্যালয় তখনই খোলা হবে, যখন কোনো ঝুঁকি থাকবে না।

করোনা সংক্রমণের কারণে সৃষ্ট বিদ্যমান পরিস্থিতিতে তৈরি হওয়া বাস্তবতা মানিয়ে নেওয়ার অভ্যাস গড়ে তোলার ওপর গুরুত্বারোপ করেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ গোলাম ফারুক। তিনি বলেন, করোনা একধরনের সুযোগও সৃষ্টি করে দিয়েছে, যদি সেটা কাজে লাগানো যায়। যেমন অনলাইনে ক্লাস। আর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সুযোগ পাওয়ামাত্রই আটকে থাকা এইচএসসি পরীক্ষা ১৫ দিনের নোটিশে নেওয়া যাবে। এ জন্য প্রস্তুতিও আছে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও করোনাভাইরাস–সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেন, দেশের চার কোটি শিক্ষার্থী হলো দেশের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ। দুই দিন ধরে দেশে করোনায় সংক্রমণের হার ১২ শতাংশের কিছু বেশি। মানে হার কমছে। তবে এই হার ৫ শতাংশের নিচে না নামলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে কি না, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আর পুনরায় যখন বিদ্যালয় খুলবে, তখন মাস্ক পরাসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে বিনিয়োগ করতে হবে।

মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ও করোনাভাইরাস–সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য অধ্যাপক মোহিত কামাল বলেন, বিদ্যালয় খুলতে হলে জাতীয় পরামর্শক কমিটির পরামর্শ নিয়ে খুলতে হবে। যেখানে ‘রেড জোন’ সেখানে স্কুল খোলা যাবে না। তিনি আরও বলেন, করোনা নিয়ে আতঙ্ক নয়, তবে যৌক্তিক ভয় থাকতে হবে। ভয় না থাকলে কে হাত ধোবে, মাস্ক পরবে?

সেভ দ্য চিলড্রেন বাংলাদেশের উপপরিচালক (ঝুঁকি হ্রাস ও জলবায়ু পরিবর্তন) সৈয়দ মতিউল আহসান বলেন, ‘আমরা অনিশ্চিত ও সংশয়পূর্ণ সময় পার করছি। কবে এ সময় শেষ হবে জানি না।’ করোনার কারণে স্কুল বন্ধ থাকায় নানাবিধ ক্ষতির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, স্কুল শুধু শিখন–শেখার জায়গা নয়, এখানে একজন শিশুকে মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা হয়। দুর্ভাগ্যজনকভাবে আজ শিশুরা এ সুযোগ থেকে বঞ্চিত। গুণগত শিক্ষার ওপর কোভিড-১৯ প্রভাব ফেলবে।

বিদ্যালয় খোলার আগে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়ার কথা উল্লেখ করে সৈয়দ মতিউল বলেন, অদূর ভবিষ্যতে হয়তো স্কুলগুলো খুলবে, তখন যেন স্কুলগুলো নিরাপদ হয়।

আর মনের ভেতর ভীতির চ্যালেঞ্জ দূর করার পরামর্শ দেন ইউনিসেফ বাংলাদেশের শিক্ষা বিশেষজ্ঞ ইকবাল হোসেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুনরায় যখন বিদ্যালয় খুলবে, তখন স্কুলের সময় কয়েকটি ধাপে ভাগ করে নেওয়ার পরামর্শ দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের জনস্বাস্থ্য বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রোমেন রায়হান।

সেভ দ্য চিলড্রেন বাংলাদেশের শিক্ষা উপদেষ্টা মোহাম্মদ কামাল হোসেন বলেন, এখনই স্কুল না খোলার সিদ্ধান্ত যৌক্তিক। কিন্তু যখন পুনরায় খুলবে, সে জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে। এ জন্য স্থানীয়ভাবে পরিকল্পনা করা দরকার।

গোলটেবিলে নিজের দুশ্চিন্তার কথা তুলে ধরে হলিক্রস কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী লাবণ্য প্রজ্ঞা। সে বলে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ক্ষেত্রে গণপরিবহন, স্যানিটেশন ইত্যাদি বিষয় ভাবতে হবে। আর যখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসবে, তখন আটকে থাকা এইচএসসি পরীক্ষা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নেওয়ার কথা ভাবতে হবে।

গোলটেবিল বৈঠকে সূচনা বক্তব্যে আলোচনার বিষয়বস্তু সম্পর্কে আলোকপাত করেন প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রথম আলোর সহকারী সম্পাদক ফিরোজ চৌধুরী।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন