default-image

অধ্যায় ৩

প্রশ্ন: চিত্রসহ পানিচক্র ব্যাখ্যা করো।

উত্তর: সূর্যতাপ ভূপৃষ্ঠের, অর্থাৎ পুকুর, খাল বিল, নদী ও সমুদ্রের পানিকে জলীয়বাষ্পে পরিণত করে। জলীয়বাষ্প বায়ুমণ্ডলের ওপরের দিকে উঠে ঠান্ডা হয়ে ক্ষুদ্র পানিকণায় পরিণত হয়।

ক্ষুদ্র পানিকণা একত্র হয়ে আকাশে মেঘরূপে ঘুরে বেড়ায়। মেঘের পানিকণাগুলো একত্র হয়ে আকারে বড় হয়ে বৃষ্টিরূপে মাটিতে পড়ে। আবার বায়ুপ্রবাহের কারণে জলীয়বাষ্প মেঘরূপে উড়ে গিয়ে পর্বতের চূড়ায় পৌঁছায়। সেখানে মেঘের পানিকণা ঠান্ডায় বরফে পরিণত হয়। এ বরফ গ্রীষ্মকালে সূর্যের তাপে গলে পানি হয়ে পাহাড়ের গা ঘেঁষে ছোট পাহাড়ি নদীর উত্পত্তি হয়। এই নদীর পানি সবশেষে সমুদ্রে গিয়ে মেশে। এভাবে পানির চক্রাকারে ঘুরে আসাকে পানিচক্র বলে।

প্রশ্ন: জীবের কেন পানি প্রয়োজন?

উত্তর: পানি ছাড়া জীব বাঁচতে পারে না। যেসব কারণে জীবের জন্য পানি প্রয়োজন তা হলো—

১. পানি খাদ্য পরিপাক করে।

২. পানি জীবদেহের বিভিন্ন অংশে পুষ্টি উপাদান শোষণে সাহায্য করে।

৩. সালোক সংশ্লেষণের মাধ্যমে খাদ্য তৈরিতে উদ্ভিদের পানি প্রয়োজন।

৪. পানি দেহে পুষ্টি উপাদান পরিবহনে সহায়তা করে।

৫. পানি দেহের তাপমাত্রাকে স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে।

বিজ্ঞাপন

প্রশ্ন: পুকুরের পানি থেকে আমরা কীভাবে নিরাপদ পানি পেতে পারি?

উত্তর: পুকুরের পানি থেকে নিরাপদ পানি পাওয়ার উপায়গুলো হলো—

ছাঁকন: পুকুরের পানিতে মিশে থাকা কাদা ও ময়লা পাতলা কাপড় বা ছাঁকনি দ্বারা ছেঁকে পরিষ্কার করা যায়।

থিতানো: পুকুরের পানি কলস বা অন্য কোনো পাত্রে বেশ কিছুক্ষণ রেখে দিলে পাত্রের তলায় তলানি জমে। অতঃপর পাত্রটিকে কাত করে ওপর থেকে পরিষ্কার পানি সংগ্রহ করা যায়।

ফোটানো: পুকুরের পানিকে ফুটিয়ে শোধন করা যায়। অন্তত ২০ মিনিট ফোটালে জীবাণু থাকলে মারা যায়।

রাসায়নিক পদার্থ মিশিয়ে বিশুদ্ধকরণ: পুকুরের পানিতে ফিটকিরি, ব্লিচিং পাউডার, হ্যালোজেন ট্যাবলেট ইত্যাদি পরিমাণমতো মিশিয়ে পানিকে জীবাণুমুক্ত করা যায়।

বাকি অংশ ছাপা হবে আগামীকাল

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন