বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শনিবার প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের এক আদেশে নতুন এই সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়। এতে বলা হয়, করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর ১২ সেপ্টেম্বর থেকে সীমিত আকারে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পুনরায় শ্রেণি কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। এখন পুনর্বিন্যস্ত শিখন ঘাটতি পূরণ পরিকল্পনা (এআরএলপি) ও মিশ্র সময়সূচি (অনলাইন, সরাসরি, রেডিও এবং টেলিভিশনের মাধ্যমে পাঠদান) প্রণয়ন করা হয়েছে। সে জন্য ২৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিদ্যালয়ে শ্রেণি পাঠদান কার্যক্রম চলমান থাকবে। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, বড়দিন ও শীতকালীন ছুটি হবে ২৪ থেকে ২৯ ডিসেম্বর।

অবশ্য কোনো কোনো শিক্ষক বলেছেন, একেবারে ছুটি শুরুর আগের দিন এই পরিবর্তন না করে আরও আগে ঘোষণা করা উচিত ছিল। কারণ, শিক্ষকদের অনেকেই পূর্বসিদ্ধান্ত অনুযায়ী ছুটি কাটাতে বিভিন্ন রকমের পরিকল্পনা করে রেখেছিলেন।

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন