default-image

‘বেগম রোকেয়া পদক ২০২০’ পাচ্ছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) উপাচার্য শিরীণ আখতার। নারীর শিক্ষা, অধিকার, আর্থসামাজিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখায়, সাহিত্য ও সংস্কৃতির মাধ্যমে নারী জাগরণ এবং পল্লি উন্নয়নে অবদান রাখায় তাঁকে এ পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়েছে।

আজ রোববার রাতে প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস এম মনিরুল হাসান। তিনি বলেন, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বিকেলে বিষয়টি জানানো হয়। উপাচার্য শিরীণ আখতার এ পুরস্কার পাচ্ছেন।

এ বিষয়ে শিরীণ আখতার প্রথম আলোকে বলেন, ‘এ পুরস্কার আমার কাজের গতি আরও বাড়িয়ে দেবে। নারী শিক্ষা, অধিকার, সাহিত্যসহ এ ধরনের বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে আসছিলাম। এখন আরও সোচ্চার হব।’

শিরীণ আখতার কক্সবাজার সরকারি গার্লস স্কুল থেকে ১৯৭৩ সালে এসএসসি, ১৯৭৫ সালে চট্টগ্রাম সরকারি গার্লস কলেজ থেকে এইচএসসি ও ১৯৭৮ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে ১৯৮১ সালে একই বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নেন। এ ছাড়া ভারতের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রিও অর্জন করেন।

বিজ্ঞাপন

শিরীণ আখতার ১৯৯৬ সালের জানুয়ারিতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে প্রভাষক পদে যোগদান করেন। পরে ২০০৬ সালে অধ্যাপক পদে পদোন্নতি এবং ২০১৬ সালের ২৮ মার্চ সহ-উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পান। ২০১৯ সালের নভেম্বরে তিনি উপাচার্যের দায়িত্ব পান। শিরীণ আখতারই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম নারী উপাচার্য।

মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে প্রতিবছর ৯ ডিসেম্বর দেশব্যাপী ‘বেগম রোকেয়া দিবস’ উদ্‌যাপন করা হয়। এদিন ‘বেগম রোকেয়া পদক’ প্রদান করা হয়।

মন্তব্য করুন